Tag Archives: মেহেদী হাসান মিরাজ

একটা ম্যাচ জিতেই খুশি হলে সামনে এগোতে পারবো না: মিরাজ

নাটকীয় সফরে স্বপ্নের অভিষেক। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে শেষে এমনই ভাবনা মেহেদি হাসান মিরাজের। টেস্টের পর ওয়ানডেতেও ঝলমলে তরুণ এই বোলিং অলরাউন্ডার। ৪৩ রান খরচ করে নিয়েছেন দুই উইকেট। দলও জিতেছে ৯০ রানে। খুশি, তবে এক ম্যাচের জয় নিয়ে পড়ে থাকতে চান না মিরাজ।  

প্রথম ওয়ানডের একদিন পর গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে দুইবার নেতৃত্ব দেওয়া এই ক্রিকেটার। গেল বছরের অক্টোবরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক টেস্টেই নিয়েছিলেন ৭ উইকেট। অন্যদিকে, লঙ্কানদের বিপক্ষে নিয়েছেন অভিষেক ওয়ানডে ম্যাচে দুই উইকেট। তারপরও রঙিন পোশাকের অভিষেককেই এগিয়ে রাখছেন তিনি।

বললেন, ‘দুইটাই স্বপ্নের মতো হয়েছে। টেস্টে অভিষেক হয়েছে পাঁচ উইকেট নিয়ে। কিন্তু ম্যাচটা আমরা জিতিনি। কিন্তু ওয়ানডেতে জিতেছি। আমার কাছে মনে হয়, ওয়ানডে অনেক ভালো হয়েছে। ওয়ানডে অভিষেকটা ভালো হয়েছে। যে রকম চেয়েছিলাম, টেস্ট ও ওয়ানডে; দুই অভিষেকই তেমন হয়েছে। এখন এটা ধরে রাখতে হবে।’

দল জিতেছে, নিজের অভিষেক ম্যাচে ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সটাও একেবারে খারাপ হয়নি। তারপরও শতভাগ নিশ্চিন্ত হওয়ার সুযোগ নেই ১৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটারের। উদযাপন নিয়ে প্রশ্ন তুলতেই জানালেন, সিরিজ জয় নিশ্চিত করেই উদযাপন করবেন।

মিরাজের ভাষায়, ‘ভালো লেগেছে। কিন্তু এখনো তো খেলাই শেষ হয়নি। একটা ম্যাচ জিতেই যদি আমরা খুশি হয়ে যাই, তাহলে সামনে এগোতে পারবো না। সিরিজ কনফার্ম হলে আমরা উদযাপন করবো। তবে এটা ঠিক, একটা ম্যাচ জিতে আমাদের ভালো লেগেছে। মূল প্রত্যাশা অবশ্য সিরিজ জেতা।’

আর সেই সিরিজ জয়টা পরের ম্যাচেই নিশ্চিত করতে চান মিরাজ, ‘আশা তো করি, ইন শা আল্লাহ। যদি কোন ভুল না হয়, দ্বিতীয় ম্যাচে আমরা জিতবো।’

দেখে একবারও মনে হয়নি মিরাজ প্রথম ওয়ানডে খেলছে: তামিম

ছবি: সংগৃহীত

 বাংলাদেশ দলের হয়ে সাতটি টেস্ট খেলে ফেললেও অপেক্ষা ছিলো রঙিন পোশাকে দেশের প্রতিনিধিত্ব করার। সেটাও হয়ে গেলো শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে। ব্যাটিংয়ে না নামলেও বল হাতে সুযোগ পেয়েই জ্বলে উঠলেন ১৯ বছর বয়সী ডানহাতি এই অলরাউন্ডার। অভিষেক ম্যাচেই দুই উইকেট নিয়ে লঙ্কানদের বিপক্ষে ৯০ রানের বড় জয়ে অবদান রাখেন মিরাজ।

তাইতো ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে তামিম ইকবালের কণ্ঠেও শোনা গেল মিরাজ স্তুতি। ডানহাতি এই অফস্পিনারের বোলিং দারুণ মুগ্ধ করেছে দেশসেরা এই বাঁ-হাতি ওপেনারকে। শুধু তাই নয়, তামিম জানান মিরাজকে দেখে তার একবারও মনে হয়নি এদিন তার অভিষেক ঘটেছে।

এ প্রসঙ্গে তামিম বলেন, ‘মিরাজের বোলিং দেখে আমি যারপরনাই খুশি। আমি অবাক হয়ে দেখলাম, টেস্টের মত ওয়ানডে অভিষেকেও কী অসাধারণ বোলিং করলো মিরাজ। মাঠে তার চলাফেরা, সাহস, আর বুদ্ধিদীপ্ত বোলিং দেখে মনেই হয়নি, এটা ছিল তার প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ। আমার কাছে মনে হয়েছে, সে খুবই আত্মবিশ্বাসী একটা ছেলে। আশা করি, ও এখান থেকে কেবল সামনের দিকেই এগিয়ে যাবে।’

লঙ্কানদের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের স্কোয়াডেই ছিলেন না মেহেদী হাসান মিরাজ। লঙ্কানদের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ শেষে দেশে ফিরে আসেন মিরাজ। উদ্দেশ্য দেশে অনুষ্ঠিতব্য ইমার্জিং এশিয়া কাপ ও ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ। শেষ মুহূর্তে ডাম্বুলায় ম্যাচের দু’দিন আগে তাকে উড়িয়ে নিয়ে যায় টিম ম্যানেজমেন্ট।

ব্যাটিংয়ে না নামলেও বল হাতে সুযোগ পেয়েই জ্বলে উঠলেন ১৯ বছর বয়সী ডানহাতি এই অলরাউন্ডার। অভিষেক ম্যাচে তার প্রথম শিকারে পরিণত হন লঙ্কান ব্যাটসম্যান কুশল মেন্ডিস। আর দ্বিতীয় শিকার ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে দিনেশ চান্দিমাল।

মিরাজ নাকি সানজামুল কার ওয়ানডে অভিষেক হচ্ছে আজ?

সফল টেস্ট সিরিজ আজ থেকে স্বাগতিক শ্রীলংকার বিপক্ষে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ওয়ানডে সিরিজ। প্রথম ওয়ানডের একাদশ নিয়ে নেই কোন ইঙ্গিত, তাই শেষ নেই জল্পনা কল্পনার।

শুভাগত হোমের সুযোগ আছে স্পিন অলরাউন্ডে নিজের জায়গা করার।

কার অভিষেক হচ্ছে আজ, মেহেদী হাসান মিরাজ নাকি সানজামুল ইসলামের? মিরাজের অভিষেক, একটু খটকা লাগতে পারে। তবে সত্যিটা হচ্ছে, বাংলাদেশের হয়ে এ পর্যন্ত ৭টি টেস্ট খেললেও এই অফ স্পিনারের এখনো সীমিত ওভারের কোনো ম্যাচ খেলা হয়নি। মিরাজ তবু টেস্ট খেলেছেন, বাঁহাতি স্পিনার সানজামুল সেখানে একেবারেই আনকোরা। জাতীয় দলে এবারই প্রথম ডাক পেয়েছেন। এখন প্রশ্ন, একাদশে তার জায়গা হবে তো?

শুধু মেহেদী মিরাজ আর সানজামুল নয়, এমন প্রশ্ন আছে আরও কয়েকজন ক্রিকেটারকে নিয়ে! শ্রীলংকার বিপক্ষে আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডের একাদশ সাজানো নিয়ে রীতিমতো মধুর সমস্যায় রয়েছে টাইগার টিম ম্যানেজমেন্ট।

ওপেনিং জুটির কথাই ধরা যাক। তিন ফরম্যাটে জাতীয় দলের হয়ে সর্বোচ্চ রান করা তামিম ইকবাল ইনিংস ওপেন করবেন। কিন্তু তার সঙ্গী হবেন কে? দীর্ঘ রানখরা কাটিয়ে এখন দারুণ ছন্দে রয়েছেন সৌম্য সরকার; অন্যদিকে ওয়ানডেতে রানে আছেন আরেক ওপেনার ইমরুল কায়েসও। কাকে বেছে নেবে বাংলাদেশ? সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন ও মাহমুদউল্লাহ এ তিনজনের কাকেই বা বাদ দেবে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডের একাদশ সাজাতে এমন আরও অনেক কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে সফরকারীদের।

এদিকে বোলিংয়ে অনেক দিন ধরে অধিনায়ক মাশরাফিসহ তিন পেসার নিয়ে খেলছে বাংলাদেশ। মোস্তাফিজুর রহমানের খেলা নিয়ে সংশয় নেই। ফলে তাসকিন আহমদে, রুবেল হোসেন ও শুভাশীষ রায়ের মধ্য থেকে একজনকে বেছে নিতে হবে। আবার সাকিবের সঙ্গে একজন স্পিনারের খেলা নিশ্চিত, খেলতে পারেন দুইজনও। ফলে বাঁ-হাতি অর্থোডক্স স্পিনার সানজামুল ইসলামের অভিষেক হয়ে যেতে পারে এবারই। আবার হঠাৎ ওয়ানডে দলে আসা অফ-স্পিন অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজকেও দেখা যেতে পারে একাদশে।

এছাড়া শুভাগত হোমের সুযোগ আছে স্পিন অলরাউন্ডে নিজের জায়গা করার। তিনজনের যে কোনো দুইজনকে বেছে নেয়া হলে এক্ষেত্রে লড়াই হবে ত্রিমুখী। লড়াই হবে মিরাজ, সানজামুল ও শুভাগতর সঙ্গে। তবে প্রস্তুতি ম্যাচে অনুজ্জ্বল পারফরম্যান্সের কারণে অনেকটাই পিছিয়ে শুভাগত।

ইমার্জিং কাপে খেলবেন মিরাজ-নাসিররা

ছবি: সংগৃহীত

এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) আয়োজনে আট দলের এই টুর্নামেন্টে এশিয়ার চার টেস্ট খেলুড়ে দেশ বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা খেলবে তাদের অনূর্ধ্ব-২৩ দল নিয়ে। আগামী ২৭ মার্চ শুরু হবে এই ইমার্জিং এশিয়া কাপ।

টুর্নামেন্টে জাতীয় দলের চার জন খেলোয়াড় রাখতে পারবে দেশগুলো। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ দলে থাকতে পারেন নাসির হোসেন, মেহেদি হাসান মিরাজ, কাজী নুরুল হাসান সোহান, মোহাম্মদ মিঠুন, আবু হায়দার, তানভীর হায়দার, আবুল হাসানদের মধ্যে যেকোনো চারজন।

আপাতত ২১ জনের প্রাথমিক দল নিয়ে প্রস্তুতি শুরু করেছে বাংলাদেশ। পাঁচ দিনের প্রস্তুতি শেষে ১৬ ও ১৮ মার্চ ফতুল্লায় দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে তারা। শ্রীলঙ্কা যাওয়ার আগে শারীরিক অবস্থা বুঝতে ম্যাচ দুটি খেলার কথা আছে বাংলাদেশ জাতীয় দলের সীমিত ওভারের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার।

আগামী ২১ তারিখে কক্সবাজারে রওনা হওয়ার আগে ঘোষণা করা হবে ১৫ সদস্যের বাংলাদেশ দল। দলের অধিনায়ক কে হবেন, সেটা এখনও নির্ধারণ না হলেও কোচিং স্টাফ ঠিক হয়েছে এরই মধ্যে। দলের প্রধান কোচ মিজানুর রহমান, ব্যাটিং কোচ নুরুল আবেদীন ও ফিল্ডিং কোচ সাইফুল ইসলাম।

মেহেদী হাসান মিরাজে মুগ্ধ ভারতের বিষেন সিং বেদী

ভারতের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে মাত্র দুই উইকেট পান মেহেদী হাসান মিরাজ। হায়দ্রাবাদে অনুষ্ঠিত এই ম্যাচে খুব ১৯ বছর বয়সী স্পিনার বেশি উইকেট না পেলেও জিতে নিয়েছেন ভারতের অনেকের হৃদয়। এবার তার প্রশংসায় যোগ দিলেন ভারতের জীবন্ত কিংবদন্তী ক্রিকেটার বিষেন সিং বেদী।

মেহেদী হাসানের শুধু প্রশংসায় করে থেমে থাকেননি সাবেক এই স্পিনার। তিনি তরুন এই স্পিনারের সাথে কাজ করার ইচ্ছে প্রকাশ করেন এবং জানান এতে তিনি অত্যন্ত আনন্দিত হবেন।

সদ্য ক্রিকইনফোর বর্ষসেরা অভিষিক্ত বোলারের পুরস্কার জেতা মেহেদী হাসান মিরাজের উত্থানে সুপ্রসন্ন ভারতের কিংবদন্তি স্পিনার বিষেন সিং বেদী। এতটাই যে, নিজে থেকে বাংলাদেশের তরুণ অফ-স্পিনারকে সাহায্য করতে চান বলে জানিয়েছেন তিনি। জানা গিয়েছে, সম্প্রতি টাইগার পতৌদি স্মরণে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সৈয়দ আশরাফুল হককে বেদী প্রস্তাব দেন যে, তিনি মিরাজকে সাহায্য করতে প্রস্তুত।

সেদিন কলকাতার গ্র্যান্ড ওবেরয় হোটেলে পতৌদি পত্নী শর্মিলা ঠাকুর তার প্রয়াত স্বামীর স্মৃতিচারণামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) সাবেক সিইও আশরাফুল হককে বেদী বলেন, ‘আমি সত্যি মেহেদীকে পছন্দ করি। মেহেদীর বোলিং অ্যাকশন একেবারে প্রকৃতিপ্রদত্ত। অসততামুক্ত। ওর বোলিংয়ে আমি মুগ্ধ। ওর সঙ্গে কয়েক সেশন কাটাতে পারলে আমি নিজেও খুশি হব।’

বেদী আরও বলেন, ‘মেহেদীকে দেখে আমার একজন চমৎকার ক্রিকেটার বলে মনে হয়। ও যদি আগ্রহী হয়, তাহলে আমি ওকে শেখাতে প্রস্তুত।’

এদিকে শোনা গিয়েছে, আশরাফুল হক ভারতীয় লিজেন্ডের কথায় খুশি হয়ে তাকে বলেন, ‘তাহলে তো দারুণ হবে। আমি আপনার প্রস্তাব বিসিবিকে জানিয়ে দেব।’

১৯ বছর বয়সী মেহেদী হাসান মিরাজের টেস্টে অভিষেক হয়েছে গত বছর অক্টোবরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। দুই ম্যাচের ওই সিরিজে ১৯ উইকেট নেয়া এই তরুণ অফ-স্পিনার পাঁচ টেস্টে ২৫ উইকেট নিয়েছেন।

উল্লেখ্য, আশরাফুল হকের ঘূর্ণি-জাদুতেই ১৯৭৯ সালে ফিজিকে ২২ রানে হারিয়ে বাংলাদেশ প্রথম জয় পেয়েছিল আইসিসি ট্রুফিতে। ২৩ রানে সাত উইকেট নিয়েছিলেন তিনি।

প্রথম আলো সেরা উদীয়মান খেলোয়াড় মেহেদী হাসান

বাংলাদেশ দলের তরুণ অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ ক’দিন আগেই ‘ক্রিকইনফোর’ বর্ষসেরা অভিষিক্ত ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন। এর রেশ কাটতে না কাটতেই বাংলাদেশের ক্রীড়া জগতের অন্যতম বড় পুরষ্কার ‘রূপচাঁদা-প্রথম আলো ক্রীড়া পুরষ্কার ২০১৬’ এর বর্ষসেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতেছেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ দলের এই সাবেক অধিনায়ক।


পুরষ্কার পেয়ে মিরাজ বলেন, ‘গত বছর মোস্তাফিজ এখানে পুরস্কার জিতেছিল মনে আছে। এবার আমি পেলাম। আমাদের কাছে পুরস্কারটার গুরুত্ব অন্য রকম।’ মেহেদী হাসান মিরাজ তার অভিষেক সিরিজে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২ ম্যাচে ১৯ উইকেট নিয়ে সিরিজের সেরা খেলোয়াড় হয়েছিলেন।

প্রথম ম্যাচে দুই ইনিংস মিলিয়ে নেন ১২ উইকেট। তার এই পারফরমেন্সই ‘রূপচাঁদা-প্রথম আলো ক্রীড়া পুরষ্কার ২০১৬’ এর বর্ষসেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরষ্কার জিতিয়েছে। আসন্ন শ্রীলঙ্কা সিরিজে ভালো করতে মরিয়া বাংলাদেশের তরুণ অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। তার ভাষায়, ‘আমাদের সঙ্গে শ্রীলঙ্কার কন্ডিশনের অনেক মিল। এ সফরে চেষ্টা করব মনে রাখার মতো কিছু করার।’

মিরাজ তার টেস্ট ক্যারিয়ারে বল হাতে ৫ ম্যাচে ২৫ উইকেট নিয়েছেন। ব্যাট হাতে রয়েছে তার একটি ফিফটি।

ছবি ও সূত্রঃ প্রথম আলো

শ্রীলংকায় ভালো কিছু করার প্রত্যয় উদীয়মান মিরাজের

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে শ্রীলঙ্কায় খেলার অভিজ্ঞতা আছে মেহেদী হাসান মিরাজের। এবার জাতীয় দলের হয়ে যাচ্ছেন সেখানে। মিরপুর একাডেমি থেকে বিমানবন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার আগে চ্যানেল আই অনলাইনকে মিরাজ জানালেন লক্ষ্যের কথা, ‘শ্রীলঙ্কার মাটিতে এর আগে খেলেছি। ওখানে স্পিন খুব ভালো ধরে। আশা করি ভালো কিছু করতে পারবো।’

অভিষেক টেস্ট সিরিজে ১৯ উইকেট নিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করা মিরাজকে ঘিরে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের প্রত্যাশা অনেক। সাকিব-মোস্তাফিজদের মতো মিরাজকে ম্যাচ উইনার হিসেবেই ধরছেন মুশফিক, ‘সাকিব, মোস্তাফিজ, মিরাজ- তিনজন আলাদা আলাদাভাবে স্কিলফুল বোলার। তারা যখন একটা দলের হয়ে বোলিং করবে, তখন প্রতিপক্ষের জন্য সেটা কঠিন ব্যাপারই হবে। এটা আমাদের দলের জন্য দারুণ ব্যাপার।’

অধিনায়কের প্রত্যাশা পূরণে যথাসাধ্য চেষ্টা করবেন মিরাজ, ‘আমি সেরাটা দেয়ার ব্যাপারে আশাবাদী। দলের প্রয়োজন মেটাতে চেষ্টার কোনো ঘাটতি থাকবে না। শেষ দুটি সিরিজ থেকে অনেক কিছু শিখেছি। আমি চাই শ্রীলঙ্কা সফর স্মরণীয় করে রাখতে। ব্যাটিং-বোলিং দুই বিভাগেই অবদান রাখতে।’

গত বছর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ১৯ উইকেট নেন মিরাজ। নিউজিল্যান্ড সফরে অবশ্য সেভাবে জ্বলে উঠতে পারেননি। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে নিয়েছেন ৪ উইকেট। ভারতে সবশেষ টেস্টে নিয়েছেন ২ উইকেট। লঙ্কান স্পিন উইকেটে এবার পুষিয়ে দেওয়ার পালা।

আগামী ৭ মার্চ গলে শুরু শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্ট। কলম্বোয় দ্বিতীয় টেস্ট ১৫ মার্চ। টেস্ট সিরিজের পর স্বাগতিকদের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি সিরিজ খেলবেন টাইগাররা। দুপুর দুইটার ফ্লাইটে শ্রীলঙ্কার উদ্দেশে দেশ ছাড়বে মুশফিকবাহিনী। পিএসএল খেলতে দুবাইয়ে থাকা সাকিব, তামিম, মাহমুদউল্লাহ টেস্ট সিরিজর আগেই শ্রীলঙ্কায় দলের সঙ্গে যোগ দেবেন। টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশ দল ১৬ সদস্যের। সোমবার যাত্রা করেছেন দলের ১৩ ক্রিকেটার।

মিরাজ-মোস্তাফিজের বিশ্ব জয়!

বাংলাদেশের মেহেদি হাসান মিরাজ এবং মোস্তাফিজুর রহমান ক্রিকইনফো জয় করেছেন। মিরাজ হয়েছেন ক্রিকেটের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফোর বর্ষসেরা ডেব্যু ক্রিকেটার হয়েছেন। আর মোস্তাফিজ হয়েছেন বর্ষসেরা টি২০ বোলার।

আজ শুক্রবার এই পুরস্কার ঘোষণা করে। মাত্র দুটি টেস্ট থেকে মিরাজ ১৫.৬৩ গড়ে ১৯ উইকেট নেয়ার জন্য এই স্বীকৃতি পেলেন।

তাকে পুরস্কার প্রদানের কারণ হিসেবে মেহেদি বলেন, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ঝড় হিসেবে আত্মপ্রকাশকারী সর্বশৈষ প্রতিভা হলেন মেহেদি হাসান। ২০১৬ সালের অক্টোবরে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে অভিষেক টেস্ট সিরিজে তিন ১৯টি উইকেট নিয়েছিলেন। কেবল উইকেট নেয়ার জন্যই নয়, তার বোলিং অ্যাকশন, ডেলিভারি স্ট্রাইড এবঙ বল স্পিনিং ছিল বিস্ময়কর বিষয়।

আর মোস্তাফিজ ছিলেন দুর্দান্ত। ক্রিকইনফো নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে তার ২২ রানে ৫ উইকেট নেয়ার ঘটনাটি বিশেষভাবে উল্লেখ করে।

ক্রিকইনফোর বর্ষসেরা অভিষিক্ত ক্রিকেটার মিরাজ

জনপ্রিয় ক্রিকেট ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফো’র বর্ষসেরা ক্রিকেটারদের তালিকা আজ (শুক্রবার) প্রকাশ করা হয়েছে। ২০১৬ সালের সেরা অভিষিক্ত ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশের মেহেদী হাসান মিরাজ। আজ বাংলাদেশ সময় রাত ৯ টা ৩০ মিনিটে বর্ষসেরা ক্রিকেটারদের এই তালিকা প্রকাশ করে ক্রিকইনফো।

সেরা অভিষিক্ত ক্রিকেটার ক্যাটাগরিতে মিরাজের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন জাসপ্রিত বুমরাহ, হাসিব হামিদ, জায়ান্ত ইয়াদাব ও কারুন নায়ার। টানা দুই বছর বাংলাদেশের ক্রিকেটার এই পুরস্কার জিতে নিলেন। ২০১৫ সালের বর্ষসেরা অভিষিক্ত খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছিলেন বাংলাদেশের বামহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান।

২০১৬ সালের অক্টোবরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক হয়েছিলো মেহেদী হাসান মিরাজের। অভিষেক সিরিজেই বিস্ময় সৃষ্টি করেন মিরাজ। প্রথম দুই টেস্টে নেন ১৯ উইকেট। পাশাপাশি হয়েছেন সিরিজের সেরা খেলোয়াড়। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টাইগারদের প্রথম টেস্ট জয়ের নায়ক এই ডানহাতি স্পিনার।

জাতীয় দলের হয়ে এই পর্যন্ত ৫ টি টেস্ট খেলেছেন মিরাজ। যার মাঝে নিয়েছেন ২৫ টি উইকেট। উল্লেখ্য, এখনো জাতীয় দলের হয়ে রঙ্গিন পোশাকে খেলা হয়নি মিরাজের।

এ বছরের ‘মোস্তাফিজ’ হতে পারবেন মিরাজ?

২০১৫ সালটা মাতিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান। ওয়ানডে অভিষেকে দুর্দান্ত সাফল্য তাঁকে আইসিসির বর্ষসেরা দলেই জায়গা করে দিয়েছিল। সেরা নবাগতের পুরস্কার অদ্ভুতভাবে জশ হ্যাজলউডের কাছে গেলেও সেটা ২০১৬তেই বুঝে নিয়েছেন মোস্তাফিজ। ক্রিকইনফো অবশ্য সে ভুল করেনি, ২০১৫ সালের সেরা নবাগত হয়েছিলেন বাংলাদেশি পেসার, আর সেটা পাঠকের ভোটেই। বছর পেরোতেই আবারও উঠল প্রশ্ন, কে হচ্ছেন ২০১৬ সালের ‘মোস্তাফিজ’?
ক্রিকেটের জনপ্রিয় এই ওয়েবসাইট ২০১৬ সালে সেরা নৈপুণ্যের স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছে আজ রাত সাড়ে ৯টায়। তিন সংস্করণেই ব্যাটিং বোলিংয়ের সেরা নৈপুণ্যের সঙ্গে সেরা নবাগত ও সেরা অধিনায়ক ঘোষণার প্রথাটা চলছে অনেক দিন ধরে। এবার যোগ হয়েছে সহযোগী দেশ ও নারী ক্রিকেটেরও দুই বিভাগের সেরা নৈপুণ্যের পুরস্কারও। তবে সবার দৃষ্টি থাকবে সেরা নবাগতর দিকেই। এবারও যে দর্শক, পাঠকদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়েই বিজয়মাল্য গলায় পরবেন একজন। সেটা হতে পারেন বাংলাদেশের মেহেদী হাসান মিরাজও।
গত বছর মাত্র দুটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেই এমন সাফল্য ধরা দিতে পারে মিরাজের হাতে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক সিরিজে ১৯ উইকেট প্রাপ্তিটা এবারের ফেবারিটদের তালিকায় তুলে দিয়েছে এই স্পিনিং অলরাউন্ডারকে। তবে লড়াইটা এবার জমেছে বেশ। ভারতেরই তিনজন ক্রিকেটার আছেন এবার। টি-টোয়েন্টিতে সবাইকে চমকে দেওয়া জসপ্রীত বুমরা, মাত্র দ্বিতীয় ভারতীয় হিসেবে টেস্টে ট্রিপল সেঞ্চুরি করা করুণ নায়ার ও জয়ন্ত যাদব আছেন সেরা নবাগতের লড়াইয়ে। ইংল্যান্ডের হাসিব হামিদ, কিটন জেনিংসও ছেড়ে কথা বলবেন না নিশ্চয়ই! আর ৩৪ বছর বয়সে আন্তর্জাতিক অভিষেক হওয়া দক্ষিণ আফ্রিকান স্টিভেন কুককেও বা উড়িয়ে দেবেন কীভাবে!

ইংল্যান্ডের সিরিজ দিয়ে আরেকটি বিভাগেও নাম উঠেছে মিরাজের। ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ইতিহাস গড়া স্পেলটি আছে টেস্টের সেরা বোলিং পারফরম্যান্সের কাতারে। এ ক্ষেত্রে অবশ্য স্টুয়ার্ট ব্রড, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, টিম সাউদি, রঙ্গনা হেরাথ ও ইয়াসির শাহদের সঙ্গে পাল্লা দিতে হবে তাঁকে। ফেবারিট অবশ্য দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জোহানেসবার্গে ব্রডের ৬ উইকেটের সে স্পেলটি। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে কাগিসো রাবাদা ও ভারনন ফিল্যান্ডারের স্পেল দুটিও নিশ্চয় ছেড়ে কথা বলবে না!

খেলার সর্বশেষ নিউজ পেতে সঙ্গে থাকেন……….

%d bloggers like this: