Tag Archives: তাসকিন আহমেদ

শুরুতেই শ্রীলঙ্কা শিবিরে জোড়া আগাত হানলেন তাসকিন

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে মাঠে নামার আগে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট প্রেসিডেন্টস একাদশের বিপক্ষে প্রথম দিনে ব্যাট হাতে রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ব্যাটসম্যানরা। দু’দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথম দিনের খেলা শেষে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ৭ উইকেটের বিনিময়ে ৩৯১ রান।

২য় দিন আর ব্যাটিং না নেমে শ্রীলঙ্কাকে আমন্ত্রন যায় বাংলাদেশ।

৩৯২ রানের লক্ষে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ১২ রান করতেই ২ উইকেট হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের পেসার তাসকিন তার ২য় ওভারেই ২ উইকেট তুলে নেন।

মাশরাফি ভাই আমার পথপ্রদর্শক: তাসকিন

ভারতের বিপক্ষে অভিষেক ওয়ানডে ম্যাচে পাঁচ উইকেট নিয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজার কথা মনে করিয়ে দিয়েছিলেন তাসকিন আহমেদ। কিন্তু ১৪টি ওয়ানডে খেলতে না খেলতেই ইনজুরি আর হাঁটুর ব্যথা যেন তাকে মাশরাফিই বানিয়ে দিচ্ছিলো। তবে অভিষেকের পর প্রথম বছর ইনজুরির সঙ্গে লড়াই করলেও গত দুই বছর দারুণ ফিট ডানহাতি এই পেসার।

ইনজুরিকে জয় করার এই মন্ত্র তাসকিনকে দিয়েছেন দুই হাঁটুতে সাতবার অস্ত্রোপচার এবং ছোট বড় সব মিলিয়ে ১৩ বার ডাক্তারের ছুরি-কাঁচির নিচে যাওয়া বাংলাদেশ দলের রঙ্গিন জার্সির অধিনায়ক মাশরাফি। শুধু তাই নয়, মানসিকভাবে নিজেকে শক্ত রাখতে তাসকিনের পথপ্রদর্শক মাশরাফিই। বুধবার সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানালেন তাসকিন।

এ প্রসঙ্গে ২১ বছর বয়সী ডানহাতি এই পেসার বলেন, ‘এখন আমি ইনজুরি নিয়ে কমই চিন্তা করি। মানসিকভাবে শক্ত থাকাটা জরুরি। এই ক্ষেত্রে মাশরাফি ভাই আমার পথপ্রদর্শক। তিনি বলছেন, এটা নিয়ে বেশি ভাবতে না করছেন। আমার সব কিছুতে মাশরাফি ভাই-ই আমার মেন্টর। আমার লাইফ স্টাইল, সব কিছুতে।’

ভারতে ঐতিহাসিক টেস্ট খেলার সময় আত্মবিশ্বাসের কিছুটা অভাব ছিল তাসকিনের। এমনকি পায়ে কিছুটা ব্যাথাও অনুভব করেন তিনি। সেখানে মাশরাফিকে অনেকটাই মিস করেছেন তাসকিন, ‘টেস্টে মাশরাফি ভাইকে মিস করি। তিনি থাকলে ভালো হতো… মাঠে অভিভাবক পেয়ে যেতাম।’

নিউজিল্যান্ড-ভারতের পর এবার বাংলাদেশের মিশন শ্রীলঙ্কা। সেখানে আগের ভুল শুধরে ভাল কিছুই করতে চান ডানহাতি এই পেসার ‘শেষ কয়েকটি সিরিজের ভুলগুলো সামনে শোধরাতে চাই। সেটা পারলে, আশা করি শ্রীলঙ্কায় ভালো ফলাফল হবে। আমিও ব্যক্তিগতভাবে শ্রীলঙ্কা ভালো কিছু করতে চাই।’

ভারত বধ করতে বদ্ধ পরিকর তাসকিন

বাকি মাত্র মাঝে আর ২দিন মাঠের লড়াইয়ের আগেই টাইগার তাসকিন আহমেদের হুঙ্কার!  একচুলও ছাড় দিতে রাজী নন তিনি। ভারত কিংবা পাকিস্তানের সঙ্গে বাংলাদেশের খেলা হলে এমনিতেই দুই দেশের বাগযুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। এবার ভারতে প্রথমবার টেস্ট সফরে গিয়েও তার ব্যতিক্রম হয়নি। খেলা মাঠে গড়ানোর আগেই চলছে কথার লড়াই। সেই সূত্র ধরে তাসকিনকে নিয়ে এমন একটি সংবাদ প্রকাশ করেছে ভারতের একটি পত্রিকা।

এর আগে শুভাশিস কিংবা কামরুল ইসলামরা ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির উইকেট নেওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। এবার একই প্রত্যয় শোনা গেল এই তরুণ তুর্কীর কাছে। তিনিও কোহলির উইকেট চান। স্কোয়াডে থাকা তিন পেসারেরই লক্ষ্য এক। দেখা যাক, কার ভাগ্যে জোটে ক্রিকেট বিশ্বের এই সময়ের ভয়ঙ্করতম ব্যাটসম্যানটির উইকেট।

তাসকিন নিজেও সম্ভাব্য এই ডুয়েলের কথা স্বীকার করে নিলেন, “বিরাট কোহলিকে বল করা আমাদের কাছে দারুণ এক চ্যালেঞ্জ হতে চলেছে। তবে কোনও এক ব্যক্তি নয়। গোটা ভারতীয় দল নিয়েই ভাবছি। ”

এরপরই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে তাসকিন বলেন, “ভারত অনেক বড় দল হতে পারে, তবে মাঠের প্রতিদ্বন্দ্বীতায় কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। ”

তবে কাটার মাস্টার মুস্তাফিজকে মিস করবে দল বলে জানান তাসকিন। মুস্তাফিজের অনুপস্থিতিতে পেস আক্রমণের দায়িত্ব অনেকটাই তাসকিনের উপরেই থাকবে। সেই চ্যালেঞ্জ নিয়ে নিজেকে প্রমাণ করতে প্রস্তুত এই পেসার। ভারত বধ করতে বদ্ধ পরিকর তাসকিন।

সাকিবের কাছে এমন খেলা ‘প্রত্যাশিত’

দ্বিতীয় দিন ৩০তম ওভারে প্রথমবারের মতো আক্রমণে আসেন সাকিব। চার ওভারের স্পেলে ২৪ রান দিয়ে থাকেন উইকেটশূন্য। টম ল্যাথাম, রস টেইলরদের খুব একটা পরীক্ষায় ফেলতে পারেননি বাঁহাতি এই স্পিনার।

হেনরি নিকোলস-মিচেল স্যান্টনাররের জুটি ভাঙার আশায় অনিয়মিত পেসার সৌম্য সরকারকে দিয়েও তিন ওভার করান তামিম ইকবাল। সাফল্য মেলেনি তখনও। অবশেষে ৬৭তম ওভারে আবার আক্রমণে আনেন দলের সেরা বোলারকে। এবার আর হতাশ হতে হয়নি। ফিরে প্রথম ওভারেই স্যান্টনারকে ফিরিয়ে ৭৫ রানের জুটি ভাঙেন সাকিব।

পরের ওভারে দুই ডানহাতি ব্যাটসম্যান বিজে ওয়াটলিং ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে বোল্ড করে বাংলাদেশকে ম্যাচে ফেরান বিশ্বের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে তাসকিন জানান, সাকিবের ৩ উইকেট দলকে অনেক সুবিধা এনে দিয়েছে।

“এটা (সাকিবের ৩ উইকেট) আমাদের জন্য অনেক বড় উপকার হয়েছে। (তার কাছ থেকে এমন পারফরম্যান্স) স্বাভাবিক ব্যাপার। টেস্ট খেলাটাই এমন, মোমেন্টামের ব্যাপার। যখন মোমেন্ট আসে তখন সেটা ধরতে হয়। আমরা ধরতে পেরেছি, খুব ভালো হয়েছে আমাদের জন্য।”

দ্বিতীয় দিন বৃষ্টিতে আগেভাগেই খেলা শেষ হওয়ার আগে ৭১ ওভারে ২৬০ রানের মধ্যে নিউ জিল্যান্ডের সাত ব্যাটসম্যানকে আউট করেছে অতিথিরা। দ্বিতীয় নতুন বল নিতেও বেশি দেরি নেই। তাসকিন মনে করেন, ৮ রানের মধ্যে ৩ উইকেট তুলে নিতে পারায় তৃতীয় দিন খানিকটা এগিয়ে থাকবে তারাই।

“সাকিব দারুণ বোলিং করেছেন। তার তিন উইকেট মোমেন্টাম পরিবর্তন করে আমাদের দিকে নিয়ে এসেছে।”

“তিনি বাংলাদেশের অন্যতম সেরা বোলার। কোনো সন্দেহ নেই, তিনি ক্রিকেটেরই অন্যতম সেরা বোলার। তিনি যে কোনো কিছু করে ফেলতে পারে। তিনি অভিজ্ঞতায় পরিপূর্ণ।”

সাকিবের সেরা বোলিং ৭/৩৬ নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষেই, দেশের মাটিতে। প্রতিপক্ষের মাটিতে এর আগে কখনও দুই উইকেটের বেশি পাননি এই বাঁহাতি স্পিনার। এখন পর্যন্ত ৩২ রানে নিয়েছেন ৩ উইকেট।

জয়ের কথাও ভাবতে পারছেন তাসকিন

ওয়েলিংটনের চেয়ে ক্রাইস্টচার্চের উইকেট তাসকিনের কাছে অনেক বেশি প্রাণবন্ত মনে হয়েছে। এই টেস্টে বোলিংটাও তাই উপভোগ করছেন বাংলাদেশের তরুণ ফাস্ট বোলার। ২৬০ রানে নিউজিল্যান্ডের ৭ উইকেট পড়ে যাওয়ায় বড় কিছুর স্বপ্নই দেখছেন তিনি, ‘আগামীকাল যদি দ্রুত নিউজিল্যান্ডের বাকি ৩ উইকেট ফেলে দিতে পারি আর ব্যাটসম্যানরা ভালো করে, এই টেস্টে জেতার সামর্থ্য রাখি আমরা।’
ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে দল এ পর্যন্ত ভালোই করেছে, তবে এতে এখনো আহ্লাদিত হওয়ার মতো কিছু দেখছেন না তাসকিন, ‘আমরা একটা ভালো অবস্থানে আছি অবশ্যই। কিন্তু খুব বেশি খুশি হওয়ার আসলে কিছু নেই। খেলার এখনো তিন দিন বাকি।’
বাংলাদেশের হাত থেকে ম্যাচটি প্রায় বেরই করে নিয়ে গিয়েছিল দুটি জুটি—টম ল্যাথাম-রস টেলর ও মিচেল স্যান্টনার-ম্যাট নিকোলস। ল্যাথাম ও টেলরকে যদিও ফেরানো গেল, তারপর দাঁড়িয়ে গেলেন স্যান্টনার আর নিকোলস। মনে হচ্ছিল ওঁরা দুজনই রিড এনে দেবেন নিউজিল্যান্ডকে। কিন্তু সাকিব মাত্র ৯ বলের ব্যবধানে স্যান্টনার, ওয়াটলিং ও গ্র্যান্ডহোমের উইকেট ৩টি তুলে নিয়ে দারুণভাবে ম্যাচে ফিরিয়েছেন বাংলাদেশকে। তারপরও বাংলাদেশকে ঠিক চালকের আসনে দেখছেন না তাসকিন। তাঁর মনে হচ্ছে, এই ম্যাচ জিততে ব্যাটসম্যানদেরই বড় দায়িত্ব নিতে হবে কাঁধে, ‘রোববার সকালে বেশ দ্রুতই আমাদের ৩ উইকেট তুলে নিতে হবে। এরপর দায়িত্ব ব্যাটসম্যানদের। দ্বিতীয় ইনিংসে যদি ব্যাটসম্যানরা বড় রান তুলতে পারে, তাহলে এই টেস্টে আমরাই জিতব।’
ক্রাইস্টচার্চ টেস্ট জিততে পারলে সেটি হবে বিশাল এক অর্জন। তবে তাসকিন মনে করেন, অভিজ্ঞতার ঘাটতি থাকলেও জয়ের সামর্থ্য দলের আছে, ‘আমরা দেশের মাটিতে সর্বশেষ টেস্টে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছি। ভালো পারফর্ম করে আমরা এই টেস্টটাও জিততে পারি। সেই সামর্থ্য আমাদের আছে।’
নিজের বলে সুযোগ এসেছিল। ক্যাচও পড়েছে। ভালো বোলিং করলেও মাত্র একটি উইকেটে কি সন্তুষ্ট তাসকিন? সন্তুষ্ট হতে পারেননি, তবে আফসোস তো একটু ভেতরে ভেতরে থেকেই যায়। কিন্তু এটা নিয়ে পড়ে না থেকে ডানহাতি ফাস্ট বোলার তাকাচ্ছেন সামনে, ‘সুযোগ এসেছিল। সুযোগগুলো কাজে লাগেনি। এটি নিয়ে ভাবি না। এটি ক্রিকেটেরই অংশ। উইকেট হয়তো একটা পেয়েছি আজ। কিন্তু দিন যেদিন আসবে, হয়তো ছয়-সাত-আটটা উইকেট পেয়ে যাব। আসল বিষয় হলো ভালো জায়গায় বল করা।’

স্থানীয় পেসারদের সাফল্যে তাসকিনের গর্ববোধ

বিপিএলের সেরা বোলারদের তালিকায়ও পেসারদের মধ্যে চলছে ব্যাপক প্রতিযোগিতা। দৌড়ে এগিয়ে আছেন শফিউল ইসলাম, মোহাম্মাদ শহীদ ও তাসকিন আহমেদ।

ঢাকার পেসার মোহাম্মাদ শহীদ দুর্দান্ত ফর্মে থাকা অবস্থায় ইনজুরিতে পড়লেও শফিউল ও তাসকিনরা প্রতিনিয়ত দারুন দলকে উইকেট দিয়ে যাচ্ছে।

৮ ম্যাচে ১৫ উইকেট নেয়া শহীদ বোলারদের তালিকায় তৃতীয়তে আছেন। ১০ ম্যাচে ১৬ শিকার জাতীয় দলের আরেক পেসার শফিউলের।

তাসকিনের শুরুটা ভালো না হলেও ধীরে ধীরে ছন্দ ফিরে পেয়েছেন তিনিও। ৮ ম্যাচে একটি পাঁচ উইকেট সহ ১৫ উইকেট শিকার করেন ভাইকিংসের এই ফাস্ট বোলার।

এছাড়া রুবেল হোসাইন ও আবুল হাসান রাজুরাও সমর্থকদের নজর কেড়েছে। পেসারদের এমন সাফল্যে দেশের ক্রিকেটের গতি তারকা তাসকিন আহমেদ যথেষ্ট গর্ববোধ করেছেন।

তিনি বলেছেন, ‘আল্লাহর রহমতে আমাদের লোকাল পেসাররা খুব ভালো করছে। এটা খুবই ভালো সাইন। বিপিএলের শুরুর দিকে হয়তো বিদেশি ফাস্ট বোলারদের ওপর নির্ভর করতেন সবাই।

স্থানীয় বোলাররা ভালো করায় এখন সেটা নেই। শফিউল ভাই, শহীদ ভাই, আল্লাহর রহমতে আমিও ভালো করছি। ফাস্ট বোলাররা ভালো করলে দেখতেও ভালো লাগে। নিজের কাছে গর্ব হয় যে আমি বাংলাদেশ টিমের ফাস্ট বোলার।’