Tag Archives: ড্যারেন স্যামি

বিপিএল সেরা একাদশের অধিনায়ক স্যামি

শুক্রবার ফাইনালের মহারণে রাজশাহী কিংসকে হারিয়ে এই আসরের শিরোপা জিতেছে সাকিব আল হাসানের ঢাকা ডায়নামাইটস। সেই সঙ্গে মাসব্যাপী ব্যাট-বলের লড়াই শেষে পর্দা নেমেছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) চতুর্থ আসরের। ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক ঘরোয়া টুর্নামেন্টের এই আসরে ব্যাট-বল হাতে আলো ছড়িয়েছে দেশি-বিদেশি অনেক ক্রিকেটাররাই।

সদ্য শেষ হওয়া এই আসরের সেরা ক্রিকেটারদের বাছাই করে একাদশ তৈরি করেছে ক্রিকেট বিষয়ক জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফো। এ একাদশের অধিনায়ক হিসেবে আছেন এই আসরের একমাত্র বিদেশি অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি। এছাড়া একাদশে আছেন ব্যাট হাতে শীর্ষ রান সংগ্রাহক তামিম ইকবাল, বল হাতে সেরা উইকেট শিকারি ডোয়াইন ব্রাভো, টুর্নামেন্ট সেরা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, চলতি আসরের একমাত্র সেঞ্চুরিয়ান সাব্বির রহমান।

তবে ক্রিকইনফোর সেরা এই একাদশে জায়গা হয়নি প্রথম দুই আসরের ম্যান অব দ্যা টুর্নামেন্ট সাকিব আল হাসান, ব্যাট হাতে শুরু থেকেই আলো ছড়ানো শাহরিয়ার নাফিস কিংবা গেল আসরের চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার। বিপিএলের নিয়ম অনুযায়ী এই একাদশে দেশি ক্রিকেটার হিসেবে রাখা হয়েছে সাতজনকে। আর বাকি চার ক্রিকেটার পূর্ণ হয়েছে বিদেশি ক্রিকেটারদের দিয়ে।

ক্রিকইনফো’র একাদশে ওপেনার হিসেবে রাখা হয়েছে তামিম ইকবাল ও ঢাকা ডায়নামাইটসের আক্রমণাত্মক ওপেনার মেহেদি মারুফকে। ব্যাটিং অর্ডারে এরপর রয়েছেন সাব্বির রহমান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ নবী, ড্যারেন স্যামি। এই একাদশে উইকেটরক্ষক হিসেবে জায়গা পেয়েছেন বরিশাল বুলসের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। বোলিং বিভাগের দায়িত্বে থাকবেন ডোয়াইন ব্রাভো, জুনায়েদ খান, শফিউল ইসলাম। বাঁ-হাতি স্পিনার হিসেবে দলে রয়েছেন আরাফাত সানি।

ক্রিকইনফো’র বিপিএল সেরা একাদশ:

তামিম ইকবাল (চিটাগাং ভাইকিংস), মেহেদি মারুফ (ঢাকা ডায়নামাইটস), সাব্বির রহমান (রাজশাহী কিংস), মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (খুলনা টাইটান্স), মোহাম্মদ নবী (চিটাগাং ভাইকিংস), ড্যারেন স্যামি (অধিনায়ক, রাজশাহী কিংস), মুশফিকুর রহিম (বরিশাল বুলস), ডোয়াইন ব্রাভো (ঢাকা ডায়নামাইটস), আরাফাত সানি (রংপুর রাইডার্স) শফিউল ইসলাম (খুলনা টাইটান্স) এবং জুনায়েদ খান (খুলনা টাইটান্স)।

‘জাতীয় দলের নির্বাচকদের রেজার বিষয়টি ভাবা উচিত’:ড্যারেন স্যামি

জাতীয় দলের পারফরম্যান্স নিয়ে সমর্থকদের মধ্যে ফরহাদ রেজাকে নিয়ে উপহাসের শেষ নেই। কিন্তু এই ফরহাদ রেজাকেই প্রশংসাপত্র দিয়ে গেলেন ড্যারেন স্যামি। মাত্র শেষ হওয়া বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) চতুর্থ আসরে রানার্সআপ দল রাজশাহী কিংসের এই অধিনায়ক জানিয়ে গেলেন, জাতীয় দলের নির্বাচকদেরও উচিত রেজাকে নিয়ে চিন্তা করা।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুক্রবার ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে ৫৬ রানের হার, শিরোপা অধরাই রইল স্যামি-ফরহাদ রেজাদের কাছে। তারপরও নিজের দল নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে স্যামি শতভাগ সন্তুষ্টির ইঙ্গিত দিলেন। দলের সহঅধিনায়ক ফরহাদ রেজার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেন।

স্যামি বলেন, ‘সে (রেজা) সবসময় শিখতে চায়। অনেক বড় মনের মানুষ সে। আমি মনে করি জাতীয় দলের নির্বাচকদের তার বিষয়টি ভাবা উচিত। সহঅধিনায়ক হিসেবে দারুণ অনুপ্রেরণাদায়ী একজন ক্রিকেটার। আমার উচ্চারণ বেশ কঠিন। কিন্তু ফরহাদ সবসময় আমার দোভাষী হিসেবে কাজ করেছে। তরুণ ক্রিকেটারদের বুঝিয়েছে আমি কী বলতে চাইছি।’

কেন ‘ক্রিকেটার’ ফরহাদ রেজাকে এগিয়ে রাখতে হবে, সে ব্যাখাটাও দিলেন স্যামি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সীমিত ওভারের ক্রিকেটে কিভাবে বল হাতে চাপে রাখতে হয়, কিভাবে চাপের মধ্যে বল করতে হয় সেটা সে খুব ভালো বোঝে।’

বাংলাদেশ দলের হয়ে সবমিলিয়ে ৩৪ ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন। ব্যাট হাতে করেছেন ৪১২ রান, বল হাতে নিয়েছেন ২২ উইকেট। ১৩ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে রয়েছে ৭২ রান আর ছয় উইকেট। সর্বশেষ জাতীয় দলের জার্সি গায়ে জড়িয়েছেন ২০১৪ সালে, হংকংয়ের বিপক্ষে চট্টগ্রামে।

তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো করলেও নির্বাচকদের সুনজরে আসতে পারেননি এই অলরাউন্ডার। ৯১ প্রথম শ্রেণির ম্যাচে রেজার উইকেট রয়েছে ১৮১টি। লিস্ট এ’তে ১৪৫ ম্যাচে ১৬৩ উইকেট।

‘এখনো বোঝার চেষ্টা করছি, কী হয়েছে’: ড্যারেন স্যামির

মাত্র ১৭ বছরের এক ছিপছিপে যুবক, কিন্তু কি অসাধারণ নৈপুণ্যের ছাপ রাখলেন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) অভিষেক ম্যাচে। ব্যাটিং শক্তি বাড়াতে দলে নিলেও বল হাতে যে ভেলকি দেখালেন তা ক্রিকেট বিশ্ব মনে রাখবে অনেকদিন। শনিবার রাজশাহী কিংস ও চিটাগং ভাইকিংসের মধ্যকার ম্যাচের পুরো স্পটলাইট ছিল এই আফিফ হোসেন ধ্রুবর ওপরে।

বল হাতে পুরো মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামকে আচ্ছন্ন করে রাখেন আফিফ। বিপিএলের অভিষেকেই পাঁচ উইকেট নিয়ে রেকর্ডের পাতায়ও ঢুকে পড়েছেন রাজশাহী কিংসের এই অফ স্পিনার। আফিফের বয়স মাত্র ১৭ বছর ৭২ দিন! সব চেয়ে কম বয়সে টি-টোয়েন্টিতে পাঁচ উইকেট পাওয়ার রেকর্ড এখন তার নামের পাশে। এই রেকর্ডধারীর পারফরমেন্সের পরে মুগ্ধতা কাটছে না দলের অধিনায়ক ড্যারেন স্যামির।

ম্যাচ শেষে বিস্মিত স্যামি বলেন, ‘প্রথম ম্যাচে আফিফ যে কী ঠাণ্ডা মাথায় খেলল! আফিফকে তুলে আনার জন্য নির্বাচক কমিটি ও কোচিং স্টাফদের ধন্যবাদ। এখনো বোঝার চেষ্টা করছি, কী হয়েছে।’

পাঁচ উইকেট নিতে আফিফকে খরচ করতে হয়েছে চার ওভারে মাত্র ২১ রান, এর মধ্যে এক ওভার মেডেন। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় শিকার টি-টোয়েন্টি ইতিহাসের সেরা ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল। সেরা চারে টিকে থাকতে রাজশাহীর অস্তিত্বের ম্যাচে জয় উপহার দিল এই ১৭ বছরের যুবক। যে কিনা বর্তমান অনূর্ধ্ব ১৯ দলের সহ-অধিনায়ক।

অসাধারণ এই পারফরমেন্সের পরে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পাওয়া চুপচাপ স্বভাবের বিকেএসপির এই শিক্ষার্থী অল্প কথায় বললেন, ‘এতটা প্রত্যাশা করিনি… আমার পরিকল্পনা ছিল পরিকল্পনামত কাজটা করব। জায়গামত বল করব। এটাই পরিকল্পনা ছিল। জায়গায় বল করেছি, ভালো বল হয়েছে অনেক। উইকেট পেয়েছি।’