Tag Archives: এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)

ইমার্জিং এশিয়া কাপ টুর্নামেন্টের সময়সূচি পেছালো

এর আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) থেকে জানানো হয়েছিলো আগামী ১৫ থেকে ২৬ মার্চ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে ইমার্জিং এশিয়া কাপ। তবে ইতিমধ্যে সেই তারিখটি পেছানোর ঘোষণা দিয়েছে দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। নতুন সূচী অনুযায়ী মার্চের ২৫ তারিখ থেকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে এই টুর্নামেন্টটি।

৮ দলের এই টুর্নামেন্টটি সম্পর্কে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, ‘বর্তমান ক্যালেন্ডার অনুয়ায়ী ইমার্জিং কাপ ২৫ মার্চ শুরু হবে আর শেষ হবে ৫ এপ্রিল। ’

তবে তিনি জানিয়েছেন টুর্নামেন্টটি অনুষ্ঠিত হবে ৬ টি দল নিয়ে। যদিও এর আগে বলা হয়েছিলো ৮ টি দল থাকবে এই টুর্নামেন্টে। এই প্রসঙ্গে প্রধান নির্বাহীর বক্তব্য,‘৮টি নয় ৬টি দল নিয়ে ইমার্জিং এশিয়া কাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের সিডিউল অনুযায়ী হংকং ও আরব আমিরাত ব্যস্ত থাকায় আমরা ৬টি দল নিয়েই টুর্নামেন্টের পরিকল্পনা করছি। ’

উল্লেখ্য ইমার্জিং কাপের সবগুলো ম্যাচ ফতুল্লা, বিকেএসপি ও কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত করার পরিকল্পনা বিসিবির। আর টুর্নামেন্টের ফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে মিরপুর স্টেডিয়ামে।

বড় এক টুর্নামেন্টে ডাক পেল বাংলাদেশ!

আইসিসির বাজেট বন্ধ করে দেয়ার ঘোষণার পরই এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি) ঘোষণা দিয়েছিল চলতি বছর থেকে নিজেদের শক্তিতে উঠে দাঁড়ানোর। আর তারই অংশ হিসেবে নিজেরাই টুর্নামেন্ট আয়োজন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মার্চে অনুষ্ঠিত এ টুর্নামেন্টে ভারত-পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কার সঙ্গে অংশ নেবে বাংলাদেশও।

শ্রীলঙ্কায় এসিসি সদরদপ্তরে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, আগামী বছরের মার্চ থেকে নতুন আঙ্গিকে অনুষ্ঠিত হবে এশিয়ান এমার্জিং কাপ। আর এবারের এই টুর্নামেন্টে এশিয়ার দুটি সহযোগি দেশের পাশাপাশি অংশ নেবে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার একটি করে দল। এই খবর নিশ্চিত করেছে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন।

 

এই প্রসঙ্গে নিজামউদ্দিন বলেন, ‘ আগামী ১৫ থেকে ২৫ মার্চ দুবাইতে এই টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হবে। আর এশিয়া কাপের পাশাপাশি এমার্জিং এশিয়া কাপ, অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ ও মেয়েদের এশিয়া কাপ এখন থেকে নিয়মিত আয়োজন করা হবে বলে আমরা আশা করছি।’

এদিকে এ টুর্নামেন্টে এশিয়ার সহযোগি দেশগুলো তাদের মূল জাতীয় দল পাঠালেও চারটি টেস্ট খেলুড়ে দল তাদের অনুরধ-২৩ দল পাঠাবে। তবে শর্ত হচ্ছে এই দলে ৩ জন জাতীয় দলের ক্রিকেটারকে রাখতেই হবে। আর টুর্নামেন্টের দুটি সহযোগি দেশ বাছাই করা হবে মূলত র্যাং কিংয়ের ভিত্তিতে।