Tag Archives: আরাফাত সানি

তরুণীর অনাপত্তিতে জামিন মিলল ক্রিকেটার সানির

আরাফাত সানিআরাফাত সানি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে করা মামলায় এক মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন পেয়েছেন জাতীয় দলের ক্রিকেটার আরাফাত সানি। তাঁকে স্বামী বলে দাবি করা ওই তরুণী সানির জামিনে আপত্তি নেই বলে জানালে আদালত তাঁর জামিন মঞ্জুর করেন।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকার মহানগর দায়রা জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লা এ আদেশ দেন।

আদালতের সরকারি কৌঁসুলি তাপস কুমার পাল প্রথম আলোকে বলেন, ‘সানির স্ত্রী বলে দাবি করা ওই তরুণী আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তিনি আদালতকে বলেছেন, সানির সঙ্গে তাঁর সমঝোতা হয়েছে। তাঁরা ঘরসংসার করবেন। তাই তাঁর (সানি) জামিনে তাঁর (তরুণী) কোনো আপত্তি নেই। শুনানি শেষে আদালত সানির এক মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেন।এর আগে সানিকে স্বামী দাবি করা এই তরুণী সানির বিরুদ্ধে আরও দুটি মামলা করেন। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনে মোহাম্মদপুর থানায় করা মামলায় তথ্য পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। এরপর তাঁর বিরুদ্ধে যৌতুক নিরোধ আইনে মামলা হয়। সর্বশেষ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সানি ও তাঁর মায়ের বিরুদ্ধে মামলা হয়। এ মামলায় সানির মা আগেই জামিন পান। প্রথম দুটি মামলায় সানি কারাগারে আছেন।

তথ্য প্রযুক্তি আইনে ক্রিকেটার আরাফাত সানি গ্রেপ্তার

তথ্যপ্রযুক্তি আইনে গ্রেফতার হওয়া জাতীয় দলের ক্রিকেটার আরাফাত সানিকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় পুলিশ। এমনটাই জানিয়েছেন মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জামাল।

এ প্রসঙ্গে মোহাম্মদপুর থানার ওসি মীর জামাল প্রিয়.কমকে বলেন, ‘আমরা পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেছি। শুনানিটা কোর্টের ব্যাপার। আমরা আজই তাকে পাঠিয়েছি কোর্টে তোলার জন্য। কোর্ট শুনানি করে আমাদের রিমান্ডের যৌক্তিকতা যাচাই বাছাই করবে। রিমান্ড দিতেও পারে আবার নাও দিতে পারে। আবার জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ দিতে পারে।’

নাসরিন সুলতানা নামে এক তরুণী ৫ জানুয়ারি সানির বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন। তার দাবি, সানির সঙ্গে তার বৈবাহিক সম্পর্ক রয়েছে। সম্প্রতি তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের কিছু ছবি আরাফাত সানি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করেন বলে অভিযোগ ওঠে। এছাড়া সানি আরও ছবি প্রকাশ করার ভয় দেখিয়েছেন বলেও দাবি করেন নাসরিন।

মামলার বাদী নাসরিনের অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে মীর জামাল বলেন, ‘পাঁচ জানুয়ারি মামলাটা হয়েছে। বাদীর মূল অভিযোগ হচ্ছে তারা দুজন পরিবারের অমতে বিয়ে করেছেন। তার বক্তব্য এমন। মেয়ের পরিবার থেকে মেয়েকে অন্য জায়গায় বিয়ে দিতে চাচ্ছিল। ওই সময় সামাজিকভাবে উঠিয়ে নেয়ার জন্য আরাফাত সানিকে চাপ দিয়েছিল মেয়েটা। না নেয়াতে তাদের দ্বন্দ্ব শুরু হয়। এক পর্যায়ে মেয়ের নামে ভুয়া আইডি খুলে ফেসবুকে নগ্ন ছবি প্রকাশ করেছেন সানি।’

গত ৫ জানুয়ারি সানির নামে মোহাম্মদপুর থানায় মামলা করেন নাসরিন। উক্ত মামলার পরিপ্রেক্ষিতে রোববার সকালে ঢাকার অদূরে সাভারের আমিনবাজার থেকে সানিকে গ্রেফতার করে মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ। এই প্রতিবেদনটি লেখার সময় আরাফাত সানিকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে জানা যায়।

যদিও গ্রেফতারের পর থানায় জিজ্ঞাসাবাদে সানি বিষয়টি স্বীকার করে কোনো তথ্য দিয়েছেন কিনা এ বিষয়ে কিছু জানাননি ওসি। অন্যদিকে আরাফাত সানির মার দাবী, তার ছেলেকে ফাঁসানো হচ্ছে। তবে আরাফাত সানি ব্ল্যাকমেইলের চেষ্টা করেছিলেন কি না, সে বিষয়ে জানতে তার মোবাইল ফোনটি যাচাইবাছাই করছে পুলিশ।

অনেকদিন থেকেই জাতীয় দলের বাইরে বাঁ-হাতি এই স্পিনার। তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে বেশ নিয়মিত ও সফলতার সাথেই খেলছেন তিনি। গেল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বোলিং অ্যাকশনের নিষেধাজ্ঞায় পড়েছিলেন সানি। তবে পরবর্তীতে বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে আবারও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেছিলেন।