এরভিনের লড়াকু ব্যাটিং এ বড় স্কোরের পথে জিম্বাবুয়ে

শ্রীলঙ্কার মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জিতে নিজেদের অস্তিত্বের জানান দিয়েছিল জিম্বাবুয়ে। ক্রিকেট বিশ্বকে যেন আরেকবার মনে করিয়ে দিয়েছে, এখনও ফুরিয়ে যায়নি জিম্বাবুয়ে। ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পর টেস্টেও ব্যাট হাতে দাপট দেখাচ্ছে গ্রায়েম ক্রেমারের দল। ক্রেইগ অরভিনের ক্যারিয়ার সেরা ব্যাটিংয়ে কলম্বোতে প্রথম টেস্টের প্রথম দিনটা নিজেদের করে নিয়েছে সফরকারীরা। আট উইকেটে ৩৪৪ রান নিয়ে দাপটের সঙ্গেই প্রথম দিন শেষ করেছে তারা। টেস্টের একদিনে এটাই তাদের সর্বোচ্চ রান।

৩-২ ব্যবধানে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের সুখস্মৃতি নিয়ে কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে স্বাগতিকদের বিপক্ষে মাঠে নেমেছে গ্রায়েম ক্রেমারের দল। কিন্তু প্রথম সেশনেই চার উইকেট হারিয়ে সিরিজ জয়ের সুখস্মৃতিটা যেন মধ্যাহ্ন বিরতিতে ‘হজম’ করতে বসেছিল জিম্বাবুয়ে। টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৩৮ রানে ফিরে যান টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান। ২৩ রানে রঙ্গনা হেরাথের স্পিনে সরাসরি বোল্ড হন ওপেনার রজিস চাকাভা। সেই শুরু পতনের। এরপর এক এক করে ফিরে যান হ্যামিলটন মাসাকাদজা, তারিসাই মুসাকান্দা এবং শন উইলিয়ামস।

মধ্যাহ্ন বিরতির পর যেন ‘বদলে যাওয়া’ জিম্বাবুয়েকে দেখল কলম্বোর প্রেমাদাস স্টেডিয়াম। চার উইকেটে ৯৬ রান নিয়ে প্রথম সেশন শেষ করা জিম্বাবুয়ে দ্বিতীয় সেশনে মাত্র দুই উইকেটের হারিয়ে তুলেছে ১১৭ রান। দ্বিতীয় সেশন থেকেই জিম্বাবুয়ের ঘুরে দাঁড়ানোর গল্পের শুরু। পঞ্চম উইকেটে সিকান্দার রাজাকে নিয়ে ৮৪ রানের অনবদ্য জুটি গড়েন আরভিন। হেরাথের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হয়ে ৩৬ রানে রাজা ফিরে গেলেও হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন অারভিন।

শর্ট খেলছেন ক্রেইগ আরভিন। ছবি: এএফপি

শর্ট খেলছেন ক্রেইগ আরভিন। ছবি: এএফপি

এরপর নিজের ইনিংস বড় করার পাশাপাশি টেনেছেন দলকে। তাকে সঙ্গ দিয়ে যান লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানরা। ষষ্ঠ উইকেটে পিটার মুরের সঙ্গে ৪১ ও সপ্তম উইকেটে ম্যালকম ওয়ালারের সঙ্গে গড়েন ৬৫ রানের জুটি। ওয়ালারের সঙ্গে জুটি গড়ের পথেই আরভিন পূর্ণ করেছেন টেস্ট ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। ১৪৬ বলে নয় চার এবং এক ছয়ে তিন অঙ্ক স্পর্শ করেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। এছাড়া ৩৯ বলে ৩৬ রানের দারুণ ইনিংস খেলেছেন ওয়ালার। মুরের ব্যাট থেকে আসে ১৯ রান।

অধিনায়ক ক্রেমার অবশ্য আরভিনকে বেশিক্ষণ সঙ্গ দিতে পারেননি। ২৮২ রানে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন তিনি। আউট হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ১৩ রান। এরপর নবম উইকেটে ডোনাল্ড তিরিপানোর সঙ্গে ৬২ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়ে প্রথম দিন শেষ করেছেন আরভিন। ২৪ রান করে অপরাজিত আছেন তিরিপানো। অন্যদিকে ২৩৮ বলে ১৩ চার ও ১ ছয়ে আরভিন অপরাজিত আছেন ১৫১ রানে। টেস্টে এটাই তার ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। এর আগে ২০১৬ সালে বুলাওয়েতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৪৬ রান করেছিলেন তিনি।

লঙ্কানদের পক্ষে সর্বোচ্চ চার উইকেট নিয়েছেন রঙ্গনা হেরাথ। তবে ৩০ ওভার বল করে ১০৬ রানে খরচ করেছেন অভিজ্ঞ এই স্পিনার। আসেলা গুনারত্নে নিয়েছেন দু’টি উইকেট। এছাড়া একটি করে দখল করেন লাহিরু কুমারা ও দিলুরুয়ান পেরেরা।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s