বড় ম্যাচের প্রশ্নে, নিশ্চিত নন মাশরাফি!

ফুটবলে যেমন ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা দ্বৈরথ। ক্রিকেটে তেমনি ভারত-পাকিস্তান লড়াই। এসব ম্যাচ মানেই দর্শকমনে রোমাঞ্চ ছুঁয়ে যাওয়া। এই দলগুলোর খেলায় নজর থাকে পুরো ক্রিকেট দুনিয়ার। তবে সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ-ভারত দ্বৈরথ ছাপিয়ে গেছে ভারত পাকিস্তান লড়াইকেও। এই দুই দলের লড়াই সমর্থকদের মাঝেও সৃষ্টি করেছে বাড়তি উন্মাদনার। বৃহস্পতিবার আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দ্বিতীয় সেমিফাইনালে আবারও মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ-ভারত।

গত এক-দেড় বছর ধরেই মাঠের ও মাঠের বাইরে এই লড়াইটা খুব জমজমাট। অনেকেই এই লড়াইয়ে একটা আলাদা ঝাঁজ টের পান। এমনকি ক্রিকেটীয় দ্বৈরথ ছাপিয়ে যেন আরও বেশি কিছু পরিলক্ষিত হয় এ দু’দলের ম্যাচকে ঘিরে। তবে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা এমনটা মনে করেন না। ভারতের বিপক্ষে এই ম্যাচটি বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ম্যাচ কিনা, এমন প্রশ্নে নিশিত নন বলে জানান ৩৩ বছর বয়সী এই অধিনায়ক।

এ প্রসঙ্গে ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মাশরাফি বলেন, ‘সেই ২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপ থেকে এমন প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছি। শীর্ষ আট দলের লড়াই শেষে সেমিফাইনাল। অবশ্যই এই ম্যাচকে ঘিরে বাড়তি উন্মাদনা দেখা যাবে। তবে সবচেয়ে বড় ম্যাচ, বলা যায় তবে আমি নিশ্চিত নই।’

যেহেতু প্রতিপক্ষ ভারত, সেক্ষেত্রে এই ম্যাচের লড়াইয়ে আলাদা কোনো ঝাঁজ থাকবে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে মাশরাফি বলেন, ‘তেমনটা নয়, এখানে ইংল্যান্ড হতে পারতো। এমনকি অন্য কোনো দলও হতে পারে। এখানে আমি ভারতকে আলাদাভাবে দেখছি না। আমরা নতুন একটা ম্যাচ খেলবো। আশা করি, চাপ দূরে সরিয়ে রেখে ভালো ক্রিকেট উপহার দিতে পারবো।’

সর্বশেষ ২০১৫ সালের বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালের ওয়ানডে ফরম্যাটে আইসিসি’র কোনো টুর্নামেন্টে দেখা হয়েছিলো এ দু’দলের। এরপর ঘরের মাটিতে ভারতের বিপক্ষে সিরিজ জেতে মাশরাফিবাহিনী। ২০১৬ টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের এশিয়া কাপের ফাইনালেও মুখোমুখি হয় এই দু’দল। দেখা হয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও। অবশ্য জয়ের জন্য শেষ তিন বলে দুই রান লাগলেও হেরে যায় বাংলাদেশ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ষষ্ঠ আসরে এটা আলোচিত এক ম্যাচ হিসেবেই বিবেচিত হয়।

এদিনও সংবাদ সম্মেলনে উঠে আসে টি-টোয়েন্টি ম্যাচটির কথা। এ প্রসঙ্গে মাশরাফির ভাষ্য, ‘সে ম্যাচের ফলাফল নিয়ে আমরা এখনো আফসোস করি। তিন বলে দু’রান প্রয়োজন ছিলো। আমাদের দু’জন সেরা ব্যাটসম্যান থাকলেও আমরা হেরেছি। আসলে এটা হয় ক্রিকেটে। তবে এটা ভুলে এখন সামনের দিকে এগিয়ে চলেছি, কালকের (বৃহস্পতিবার) ম্যাচের দিকেই ফোকাস রাখছি। যদি শেষ দু’বারের সাক্ষাতে কি হয়েছে। তা আমরা ভাবনায় আনতে চাই না। সেক্ষেত্রে মাঠে আমাদের চাপ বেড়ে যাবে।’

গত দুই-তিন বছরের পারফরম্যান্সকে পাখির চোখে পরখ করলে দেখা যাবে সাফল্যের সিঁড়ি বেয়েই এই অবস্থানে উঠে এসেছে বাংলাদেশ। মাশরাফিও মনে করেন মাঠ কিংবা মাঠের বাইরে নিজেদের সর্বোচ্চটা দেওয়াতেই এই সাফল্য এসেছে দলের। তিনি বলেন, ‘লোকে শুধুমাত্র জয়টাই গণনা করে। তবে আমরা গত ক’বছর ধরে সেরাটাই দিয়ে আসছে। চলতি বছর আমরা নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছি। আয়ারল্যান্ডকেও তাদের কন্ডিশনে হারিয়েছি। এটা আমার কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ যে আমরা দিন দিন উন্নতি করছি।’

  • বৃহস্পতিবার বার্মিংহামের এজবাস্টনে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে তিনটায় মাঠে নামবে বাংলাদেশ-ভারত। জমাজমাট এক লড়াই দেখার অপেক্ষায় কোটি-কোটি দর্শক!
Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s