আগের প্রস্তুতি ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের টপ-অর্ডারকে একাই গুঁড়িয়ে দিয়েছিলেন ভারতের পেসার মোহাম্মদ শামি। দলের অন্য দুই তারকা পেসার ভুবনেশ্বর কুমার ও উমেশ যাদবও তাকে দারুণ সঙ্গ দিয়েছিলেন। সবমিলিয়ে দারুণ বোলিং প্রস্তুতি হয়েছিল ভারতের। মঙ্গলবার সেই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের বিপক্ষেও দুর্দান্ত সূচনা করেছে ভারতের ফাস্ট-বোলাররা। শামি বোলিংয়ের উদ্বোধন না করলেও ভুবনেশ্বর ও উমেশ মিলে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করেছেন বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ। মাত্র ৮ ওভারের মধ্যে ৬ উইকেট তুলে নিয়েছেন দুজনে। তাতে ৩২৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে টাইগাররা পরিণত হয়েছে ধ্বংসস্তূপে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি শুরুর আগে ভারত যেন জানান দিয়ে রাখলো ব্যাটিংয়ের মতো তাদের বোলিং লাইনআপও ক্ষুরধার। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ১৩ ওভারে ৭ উইকেটে ৪৮ রান। উইকেটে আছেন মেহেদী হাসান মিরাজ ১৫ ও সানজামুল ইসলাম ১ রানে।

পাকিস্তানের বিপক্ষে আগের প্রস্তুতি ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান তামিম ইকবাল ইনিংস ওপেন করেননি। তার পরিবর্তে ইমরুল সঙ্গী হয়েছিলেন সৌম্যর। তবে সৌম্য খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। আয়ারল্যান্ড সিরিজে টানা দুই হাফসেঞ্চুরি করে ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দেয়া ড্যাশিং ওপেনার আবারো ব্যর্থ হয়েছেন। ইনিংসের চতুর্থ ওভারের দ্বিতীয় বলে উমেশ যাদবের বলে উইকেটকিপার দিনেশ কার্তিককে ক্যাচ দিয়েছেন তিনি। ৭ বলে ২ রান করে সাজঘরে ফিরেছেন। যদিও তার আউট নিয়ে কিছুটা সন্দেহ রয়েছে। টানা তিন ম্যাচে বলার মতো কিছু করতে ব্যর্থ সৌম্য।

এরপর সাব্বির রহমানও টিকতে পারেননি। ৩ বল খেলে শূন্য রানে বোল্ড হয়েছেন তিনি। তার উইকেটটিও নিয়েছেন উমেশ যাদব। চতুর্থ ওভারেরই পঞ্চম বলে। পরের ওভারে সৌম্য-সাব্বিরকে অনুসরণ করে সাজঘরের পথ ধরেছেন ইমরুলও। ভুবনেশ্বর কুমারের বলে পুল করতে গিয়ে উমেশকে ক্যাচ দিয়েছেন তিনি। তার সংগ্রহ ৭ রান।

এর আগে লন্ডনের কেনিংটন ওভালে টসে হেরে বিরাট কোহলির ভারত চোখে লাগার মতো ব্যাট করেছে। কোহলি, এমএস ধোনি ব্যাট করেননি। যাদের প্র্যাকটিস বেশি দরকার তাদের ব্যাট করিয়েছে ভারত। তবে আগের প্রস্তুতি ম্যাচ মিস করা রোহিত শর্মা ১ রান করেই রুবেল হোসেন শিকার হন। মোস্তাফিজুর রহমান ১১ রান করা অজিঙ্কা রাহানেকে তুলে নেন এরপর। ১৯ রানে ২ উইকেট হারানো ভারত অবশ্য চাপ ঝেড়ে ফেলে ঘুড়ে দাঁড়ায়।

ওপেনার শিখর ধাওয়ান খেলেছেন ৬০ রানের ইনিংস। উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান দিনেশ কার্তিক ৯৪ রান করে অবসর নিয়েছেন। কেদার যাদবও ৩১ রান দিয়ে গেছেন। মারমার কাটকাট ব্যাটিং ছিল হার্দিক পান্ডিয়ার। ৮০ রানে অপরাজিত থেকেছেন তিনি। রবীন্দ্র জাদেজাও করেছেন ৩২ রান। তাদের প্র্যাকটিসের সামনে শেষটায় বাংলাদেশি বোলাররা খুব চাপে ছিলেন। ভারতের বড় সংগ্রহ গড়ার পথ রুদ্ধ করতে পারেনি সাকিবের দল। এই ম্যাচে নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা নিয়েছেন বিশ্রাম। সাকিব নেতৃত্ব দিয়েছেন টাইগার দলকে।

Advertisements