বাংলাদেশসহ ক্রিকেট বিশ্বের প্রতিটা ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে প্রতি ম্যাচে চারজন বিদেশি খেলানোর অনুমতি থাকে। কিন্তু বিপিএলের প্রথম আসরের মতো আবারো সংখ্যাটা পাঁচে নিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। আগামী নভেম্বরে শুরু হতে যাওয়া বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পঞ্চম আসরে প্রতিটি দল একাদশে পাঁচজন বিদেশি খেলানোর অনুমতি পেতে পারে। সেটা হলে বিপিএলের প্রথম আসরের মতো প্রতি দলে পাঁচজন করে বিদেশিকে একাদশে দেখা যাবে।

বৃহস্পাতিবার সংবাদ সম্মেলন করে এমনই জানিয়েছে বিপিএলের গভর্নিং কাউন্সিল। কারণ হিসেবে জানানো হয়েছে, এবারের বিপিএলের দলের সংখ্যা বেড়ে আটে দাঁড়াতে পারে। তেমন হলে দেশি ক্রিকেটারদের নিয়ে দল সাজানো কঠিন হয়ে যাবে। যে কারণে প্রতি ম্যাচে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটার খেলানোর জন্য আবেদন করেছে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো।

এ নিয়ে বিপিএলের গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেন, ‘ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর কাছ থেকে আবেদন এসেছে পাঁচজন করে বিদেশি খেলোয়াড় নেয়ার। আমরা যদি আটটা দল নিয়ে খেলি, তাহলে সবগুলো দলের জন্য যতো দেশি ক্রিকেটার দরকার তা কিন্তু আমাদের নেই। এই জন্যই ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো আমাদের কাছে একটা আবেদন করেছে।’

টুর্নামেন্টটি বিশ্বমানের পর্যায়ে রাখতে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর এমন আবেদন নিয়ে ভাবছে বিপিএলের গভর্নিং কাউন্সিল। ইসমাইল হায়দার বলছেন, ‘এই টুর্নামেন্টে আন্তর্জাতিক মানটা আমরা বজায় রাখতে চাই। সে দিক থেকে চিন্তা করেই এমন একটা আবেদন নিয়ে আমরা ভাবছি। তবে এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত চারজনেরই। পাঁচজন খেলানোর ব্যাপারে আমরা চিন্তা করছি। এটা এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নয়।’

বিদেশি ক্রিকেটারদের আধিক্যর কারণে উদাহারণ হিসেবে সামনে চলে আসছে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ। ঘরোয়া ক্রিকেটের সবচেয়ে মর্যাদার আসর এটি। এখানে অংশ নেয় ১২টি দল। অথচ বিদেশি ক্রিকেটার খেলানো হয় মাত্র একজন করে। তবুও এ নিয়ে বড় কোনো অভিযোগ নেই ক্লাবগুলোর। প্রতিদ্বন্দ্বিতারও কমতি নেই। সেখানে বিপিএলে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটার কেন?

এমন প্রশ্নের উত্তরে বিপিএলের সদস্য সচিব বললেন, ‘একটা হলো ওয়ানডে ফরম্যাট, অন্যটা টি-টোয়েন্টি ফরম্যাট। এছাড়া বিপিএলের ব্যবসায়িক দিকটাও দেখতে হয়। প্রিমিয়ার লিগের ১২টি দল কি সমান শক্তির? চারটা দল আছে যারা ওপরের সাত-আটটা দলের সঙ্গে জিততেই পারে না। বিপিএলের খেলাগুলোতে বহু দর্শক থাকে, টিভিতে দেখানো হয়। সুতরাং এতে দর্শকদের বিনোদন দেয়ার ব্যাপারটাও দরকার।’

বাইরের দেশের দর্শকদের ব্যাপারটিও এখানে গুরুত্ব পায় বলে জানান ইসমাইল হায়দার। তিনি বলেন, ‘অনূর্ধ্ব-১৯ দলের একজন আনকোরা খেলোয়াড়কে আনলে বিনোদন দেয়ার ব্যাপারটি নাও থাকতে পারে। এছাড়া চারজন বা পাঁচজন বিদেশি খেলোয়াড়ের ব্যাপারে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। একজন দর্শক যদি আমেরিকা থেকে বা ভারত থেকে বিপিএল দেখে, তারা যদি যথেষ্ট পরিমাণে ভালো ক্রিকেটারের উপস্থিতি না দেখে বা ভালো পারফর্ম না দেখে তাহলে কিন্তু তারা খেলা দেখবে না।’

Advertisements