ব্যাটে-বলে উজ্জ্বল বাংলাদেশের দুর্দান্ত জয়

কত স্বপ্ন আর কত আকাঙ্খা জড়িয়ে ছিল এই একটি ম্যাচ ঘিরে। এই একটি ম্যাচে হবে অনেক অর্জন। মোটা দাগে বললে তিনটি বড় বড় অর্জন তো হবেই বাংলাদেশের। নিউজিল্যান্ডই একমাত্র দেশ বাকি ছিল, যাদেরকে বিদেশের মাটিতে পরাজয়ের স্বাদ দিতে পারেনি বাংলাদেশ। সেই অপূর্ণ স্বাদ আস্বাদন করা। একই সঙ্গে আইসিসি ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ে শ্রীলংকাকে পেছনে ফেলে ছয় নম্বরে উঠে যাওয়া এবং সর্বশেষ বড় প্রাপ্তি, ২০১৯ বিশ্বকাপে সরাসরি খেলা নিশ্চিত করে ফেলা।

ডাবলিনের ক্লনটার্ফ ক্রিকেট ক্লাব গ্রাউন্ডে নিউজিল্যান্ডকে ৫ উইকেটে হারিয়ে সবগুলো অর্জন একসঙ্গে ব্যাগ পুরে নিলো মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। কিউইদের ছুড়ে দেয়া ২৭১ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১০ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

প্রথম দিকে জয়ের নায়ক ছিলেন তামিম ইকবাল এবং সাব্বির রহমান। দু’জনের ১৩৬ রানের অসাধারণ এক জুটি বাংলাদেশকে জয়ের ভিত তৈরি করে দেয়। মাঝে চারটি উইকেট টানা পড়ে গেলেও দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ … রানের জুটি গড়ে বাংলাদেশকে বহু আকাংখিত জয়টি উপহার দেন।

১৭১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে উইকেট হারিয়ে ধাক্কা খেয়েছিল বাংলাদেশ। সেই ধকল টাইগাররা সামলে উঠেছেন দ্বিতীয় উইকেটে। এই জুটিতে বাংলাদেশ পায় ১৩৬ রান। জুটি ভাঙল তামিম আউট হওয়ায়। মিচেল স্যান্টনারের বল মিড উইকেটে উড়িয়ে মারতে গিয়ে হাশিম বেনেটের তালুবন্দি হন তামিম।

তামিমের বিদায়ের পর খুব বেশিক্ষণ ক্রিজে থাকতে পারলেন না সাব্বিরও। মোসাদ্দেক হোসেনের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝির কারণে রান আউটে কাটা পড়লেন সাব্বির। এরপর ১০ রান করে সাজঘরে ফিরেছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

সৈকতের পর বিদায় নেন চার নম্বরে ব্যাট করতে নামা মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। দলীয় ১৬০ রানের মাথায় জিতান প্যাটেলের বলে প্যাডে বল লাগিয়ে এলবিডব্লিউ হন তিনি। উইকেটে নামা সাকিব আল হাসান আর মুশফিকুর রহীম মিলে চেষ্টা করেন ৩৯ রানের জুটিতে বাংলাদেশকে এগিয়ে নেয়ার। দলীয় ১৯৯ রানের মাথায় আউট হয়ে যান সাকিব আল হাসানও। হামিশ বেনেটের বলে লং লেগ অঞ্চলে তার ক্যাচ ধরেন মিচেল সান্টনার।

এরপরই জুটি গড়েন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আর মুশফিকুর রহীম। দু’জনের জুটিতে ইতিমধ্যে এসেছে ৩৭ রান। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪৪.৩ ওভার শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে ২৩৬ রান। মুশফিক ৩৯ এবং মাহমুদউল্লাহ রয়েছেন ১৮ রানে।

২৭১ রানের লক্ষ্য। তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালো ছিল না বাংলাদেশের। দলীয় ৭ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। রানের খাতা খোলার আগেই বিদায় নেন সৌম্য সরকার। তিনি শিকার জিতান প্যাটেলের। প্রথম ওভারের তৃতীয় বলে সজোরে ব্যাট চালাতে গিয়ে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে দাঁড়িয়ে থাকা ফিল্ডার কোরি অ্যান্ডারসনের হাতে ধরা পড়েন বাংলাদেশি ওপেনার।

এদিকে ত্রিদেশীয় সিরিজের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে হাফ সেঞ্চুরি করেছেন নিউজিল্যান্ডের তিন ব্যাটসম্যান। টম ল্যাথাম, নেইল ব্রুমের পর রস টেলর। এই তিন ফিফটিতে ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৭০ রান তুলেছে নিউজিল্যান্ড। জয়ের জন্য বাংলাদেশের সামনে ২৭১ রানের লক্ষ্য দিয়েছে কিউইরা।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s