‘বাংলাদেশেরও এখানে থাকা উচিত নয়’

চ্যাম্পিয়নস ট্রফি কিংবা মিনি বিশ্বকাপ। যে যেই নামেই ডাকুন না কেন, আইসিসি ওয়ানডে র্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ আট দলের এই টুর্নামেন্ট মানেই ভিন্ন উত্তেজনা, ভিন্ন আবহ। ১ জুন থেকে শুরু হতে যাওয়া চ্যাম্পিয়নস ট্রফির রয়েছে ভিন্ন উন্মাদনা। রয়েছে অতীত স্মৃতি।

আগের সাত আসরে বিভিন্ন সময়ে একাধিক ক্রিকেটার চ্যাম্পিয়নস ট্রফির শুরুর আগে কিংবা পরে নিজেদের বক্তব্যে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। কখনো তাদের বক্তব্য ভালোবাসা বাড়িয়েছে, কখনো বিতর্কের সৃষ্টি করেছে।

এবারের আসরের শুরুতে স্মরণীয় কিছু মুহূর্ত পাঠকদের ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করা হচ্ছে-

ব্রায়ান লারা :

২০০৬ সালের আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে সরাসরি অংশ নেয় র্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ছয় দল (ভারত, অস্ট্রেলিয়া, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড)। র্যাঙ্কিংয়ের পরবর্তী চারটি দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ, শ্রীলঙ্কা, জিম্বাবুয়ে ও বাংলাদেশ কোয়ালিফাইং রাউন্ড খেলে। ২৩ মার্চ কেনিয়াকে হারিয়ে শেষ দল হিসেবে (র্যাঙ্কিংয়ে দশম) চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে (কোয়ালিফাইং রাউন্ড) নাম লেখায় বাংলাদেশ। অবশ্য কোয়ালিফাইং রাউন্ড থেকে বাদ পড়ে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও শ্রীলঙ্কা চ্যাম্পিয়নস ট্রফির মূলপর্বে অংশ নেয়।

৮ অক্টোবর জিম্বাবুয়েকে ৯ উইকেটে হারায় ব্রায়ান লারার দল। ক্যারিবীয়ানদের পরবর্তী ম্যাচ ছিল বাংলাদেশের বিপক্ষে, ১১ অক্টোবর। বাংলাদেশের ম্যাচ নিয়ে লারাকে ম্যাচের পর প্রশ্ন করা হয়েছিল। লারা বাংলাদেশকে কটাক্ষ করে উত্তরটি দিয়েছিলেন এভাবে, ‘যদি জিম্বাবুয়ে এখানে খেলার সুযোগ না পায়, বাংলাদেশেরও এখানে থাকা উচিত নয়।’

পাশাপাশি ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে লারা বাংলাদেশকে নিয়ে বলেছিলেন, ‘যদি আপনি আপনার তুলনায় নিম্ন স্তরের একটি দলের বিরুদ্ধে খেলেন, তাহলে আপনাকে কোনো ধরণের খুঁত ছাড়া মাঠে নামতে হবে। বাংলাদেশ ভালো ক্রিকেট খেলতে পারে কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে দাপট দেখিয়ে ম্যাচটি জিতে নেওয়া। এটা গুরুত্বপূর্ণ যে তাদের আর আমাদের মধ্যে দূরত্ব রাখা এবং ব্যবধান স্পষ্ট করা।’

বিভিন্ন গণমাধ্যমে লারার বক্তব্য ছাপা হয়েছিল। লারার বক্তব্যে বাংলাদেশ বেশ তেঁতে উঠেছিল। কিন্তু মাঠের পারফরম্যান্সে বাংলাদেশ তেঁতে উঠতে পারেনি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ জয় পেয়েছিল ১০ উইকেটের বড় ব্যবধানে। তবে এখন মুদ্রার ওপিঠ দেখছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে অংশ নিতে পারলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজ পারছে না। এবারের চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ। অন্যদিকে বাংলাদেশ এখন অন্যান্য দলগুলোর বড় চিন্তার কারণ। ১১ বছর আগে লারা বাংলাদেশকে কটাক্ষ করেছিলেন ঠিকই। কিন্তু রক্তের বিনিময়ে স্বাধীন হওয়া দেশটির মানুষ কতটুকু সামর্থ্য রাখে সে সম্পর্কে কোনো ধারণা ক্রিকেটের বরপুত্রের ছিল না।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s