বাংলাদেশের পক্ষে ওয়ানডেতে তিন হাজার রানের মাইলফলকের সামনে দাঁড়িয়ে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ১৩৮ ম্যাচে ৩৩.১৯ গড়ে ২৯২১ রান রয়েছে তার। প্রয়োজন ৭৯ রান।

কলম্বোতে ২০০৭ সালে তিন ম্যাচ সিরিজের শেষ ওয়ানডে। শ্রীলঙ্কাকে ১৯৬ রানে বেঁধে ফেলেছিলো বাংলাদেশ। সহজ জয়টা তুলে নিতে পারেনি মোহাম্মদ আশরাফুলের বাংলাদেশ। ১৫৭ রানে গুটিয়ে গিয়ে হারের চিরচেনা ব্যথাটা কাঁধে নিয়ে ফেরেন সাকিব-তামিমরা। সেই ম্যাচে বাংলাদেশের প্রাপ্তির নাম ‘মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ’।

আশরাফুলের অধিনায়কত্বে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় রিয়াদের। ওয়ানডে ম্যাচ দিয়েই বাংলাদেশ দলে সুযোগ পান তিনি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দল হারলেও সাত নম্বরে নেমে ৩৬ রানের ইনিংস খেলেন ডানহাতি এই অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। তামিমের ৫৪ রানের পর ওটা ছিলো বাংলাদেশের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

সেই থেকে শুরু বাংলাদেশ দলের হয়ে প্রয়োজনের সময় উঠেপড়ে লেগেছেন। ব্যাটিং অলরাউন্ডার হয়ে কখনও ব্যাট হাতে, কখনও বা বল হাতে ঘূর্ণি বোলিংয়ে। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত দুটি সেঞ্চুরি রয়েছে তার। সর্বোচ্চ ১২৮, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। রয়েছে ১৬টি হাফ সেঞ্চুরি। বল হাতেও কম যান না। ঝুলিতে ভরেছেন ৭০ উইকেট।

বাংলাদেশের পক্ষে ওয়ানডেতে সবার ওপরে রয়েছেন ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল। ১৬৬ ম্যাচে তার সংগ্রহ মোট ৫৩১৫ রান। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা সাকিব করেছেন ৪৭৯০ রান। বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের অবস্থান তিন নম্বরে। ১৬৯ ম্যাচে তার মোট রান ৪১৩২ রান। চতুর্থ সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল। তার রান ১৭৫ ম্যাচে ৩৪৬৮। রিয়াদ পঞ্চম। তার পরই রয়েছেন একসময়ের নিয়মিত ওপেনার শাহরিয়ার নাফিস। ৭৫ ওয়ানডে খেলে ২২০১ রান করেছেন তিনি।

Advertisements