ত্রিদেশীয় সিরিজ ও চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দল ঘোষণা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার পালা। প্রশ্ন উড়ে এলো, পেস বোলিং অলরাউন্ডার কবে পাবে বাংলাদেশ। উত্তরে প্রধান নির্বাচক মিনজাহুল আবেদিন নান্নুর মন্তব্য, অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাই পেস বোলিং অলরাউন্ডার। মাশরাফি নিজেও স্বীকার করলেন, সামর্থ্যটা তার ছিলো।

ক্যারিয়ারে ১৭২ ওয়ানডের ১২৯ ইনিংসে ব্যাট হাতে ১৪.৪০ গড়ে নিয়েছেন ১৭২৪ রান। রয়েছে একটি হাফ সেঞ্চুরিও। ২০-৩০ রানের ইনিংস রয়েছে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক। টেস্টে ৩৬ ম্যাচে সর্বোচ্চ ৭৯ রানের ইনিংস খেলেছেন। হাফ সেঞ্চুরি রয়েছে তিনটি। দলের প্রয়োজনে কম বলে বেশি রান তুলতে জুড়ি নেই তার। ‘ব্যাটসম্যান’ হয়ে জিতিয়েছেন বেশকিছু ম্যাচ।

নিজেকে এর চাইতেও এগিয়ে নিতে পারতেন মাশরাফি। প্রধান নির্বাচকের কথার সঙ্গে পুরোপুরি একমত না হলেও, স্বীকার করলেন একজন পেস বোলিং অলরাউন্ডার হওয়ার সামর্থ্য তার ছিলো। কিন্তু নিজের সামর্থ্যকে কাজে লাগাতে পারেননি বাংলাদেশের সফলতম এই অধিনায়ক।

দৈনিক সমকালকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে এ প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘সত্যি কথা বলতে, পেস বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে নিজেকে তৈরি করার সামর্থ্য আমার ছিল। কিন্তু সেই সামর্থ্যকে আমি কাজে লাগাতে পারিনি। তবে পুরো ক্যারিয়ার যদি দেখি, তবে আমি বিশ-ত্রিশ রান করায় বেশ কিছু ম্যাচ হয়তো বাংলাদেশ জিতেছে। আট বা নয় নম্বর ব্যাটসম্যানের কাছ থেকে বিশ-পঁচিশ রান পাওয়াটা অনেক বড় ব্যাপার। দলের প্রয়োজনে ওই রানটা যদি করতে পারি, তাহলে খুব ভালো হবে।’

 

আয়ারল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ত্রিদেশীয় সিরিজ আর চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাট হাতেও দলের হয়ে অবদান রাখতে চান মাশরাফি। সেটা যতটা বেশি করতে পারেন , লাল-সবুজ জার্সিধারীদের জন্য ততটাই মঙ্গল।

Advertisements