ঢাকা দ্বিতীয় বিভাগ ক্রিকেট লিগে লাল মাটিয়ার বোলার মো: সুজন মাহমুদের ৪ বলে ৯২ রান ও ফিয়ার ফাইটার্স বোলার তাসনিম হাসানের ১.১ ওভার বল করে ৬৯ রানের বিষয়টির তদন্ত শেষ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

তদন্ত প্রতিবেদনও এরই মধ্যে জমা দেয়া হয়েছে। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন আইসিসি সভা শেষে দেশে ফেরার পর সিদ্ধান্ত জানানো হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের মিডিয়া কমিটির প্রধান মো: জালাল ইউনুস।

বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৭ এপ্রিল) বিসিবি’তে তিনি গণমাধ্যমকে জানান, ‘তদন্ত আমরা শেষ করে ফেলেছি। দ্বিতীয় ম্যাচের যেটা অভিযোগ ছিল। আনুষ্ঠানিকভাবে সেটা জানানো হবে। আমাদের সভাপতি বাইরে আছেন। তিনি আসলে তারপর আলোচনা করে জানানো যাবে।’

আম্পয়ারদের পক্ষপাতদুষ্ট আচরণের অভিনব প্রতিবাদ করে গত ১১ এপ্রিল ঢাকা দ্বিতীয় বিভাগ ক্রিকেট লিগে এক্সিওম ক্রিকেটার্সের বিপক্ষে লাল মাটিয়া ক্লাবের বোলার মো: সুজন মাহমুদের ৪ বলে ৯২ রান দিয়েছিলেন।

অভিযোগ আছে সেদিন ব্যাটিং করতে নামলে আম্পায়াররা সুজনকে বলেছিলেন দ্রুত আউট হয়ে খেলা শেষ করতে। তা না হলে তারাই তাকে আউট দিয়ে দিবেন। আম্পায়ারদের এমন অপেশাদার কথার প্রতিবাদেই সুজন সেদিন এমন লঙ্কাকাণ্ড ঘটিয়েছিলেন।

সেদিন সুজনের ১৩টি ওয়াইড থেকে ৬৫, ৩টি নো বল থেকে ১৫ ও চারটি বৈধ বল থেকে নেয়া রানে ৮৯ রানের লক্ষ্য টপকে ৯২ রান সংগ্রহ করে এক্সিওম ক্রিকেটার্স।

তার আগেরদিন ইন্দিরা রোড ক্রীড়া চক্রের বিপক্ষে ফিয়ার ফাইটার্স বোলার তাসনিম হাসান ১.১ ওভার বল করে দিয়েছিলেন ৬৯ রান।

এবার দেখা যাক, বিসিবি’র তদন্ত প্রতিবেদনে কি বেরিয়ে আসে।

সত্যিই কে দোষী। সুজন নাকি আস্পয়ররা? কার পরামর্শে সুজন ও তাসনিম এমন অভিনব প্রতিবাদের পথ বেছে নিয়েছিলেন? আম্পায়াররাই বা কেন সুজনকে দ্রুত আউট হতে বলেছিলেন?

Advertisements