ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) প্রথম রাউন্ডে হার দিয়ে শুরু করলো দেশের ঐতিহ্যবাহী দল মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের দলপতি নাসির হোসেনের অপরাজিত সেঞ্চুরিতে ৭ উইকেটে হেরেছে মোহামেডান। এটি নাসিরের লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি, আছে ২৪টি হাফ-সেঞ্চুরি।

বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে রাকিবুল হাসান, মেহেদি মিরাজ, তাইজুল ইসলামদের মোহামেডান তোলে ২২০ রান। জবাবে, ৩৭ ওভার ব্যাট করে জয়ের বন্দরে পৌঁছে এনামুল হক বিজয়, মুমিনুল হক, নাসির হোসেন, আবু হায়দার রনি, শফিউল ইসলাম আর সোহরাওয়ার্দী শুভদের নিয়ে গড়া গাজী গ্রুপ।

দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের সবচেয়ে মর্যাদার এই আসরে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স দলে ভিড়িয়েছে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে। আর মোহামেডানে নাম লিখিয়েছেন দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। তবে, দেশের বড় এই দুই তারকাকে ছাড়াই এই ম্যাচে মাঠে নামে দুই দল। গতবারের আসরে আম্পায়ারের সঙ্গে বাজে আচরণের দায়ে এক ম্যাচ নিষেধাজ্ঞায় খেলতে পারেননি তামিম। আর আইপিএলের ম্যাচ থাকায় গাজী গ্রুপে খেলতে পারেননি সাকিব।

আগে ব্যাট করা মোহামেডানের ওপেনার শামসুর রহমান ৩৫ আর সৈকত আলি ১০ রান করে বিদায় নেন। রনি তালুকদার ৯, দলপতি রাকিবুল হাসান ১০ রানে সাজঘরে ফেরেন। পাঁচ নম্বরে নামা আফগানিস্তানের রহমত শাহ ৯১ বলে ৭৮ রান করেন। মিরাজের ব্যাট থেকে আসে ৫২ রানের দারুণ এক ইনিংস।

২২১ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে গাজীর ওপেনার এনামুল হক বিজয় ৫১ বলে ৮টি চার আর ১টি ছক্কায় করেন ৫৪ রান। জহুরুল ইসলাম ১, মুমিনুল হক ২ রানে বিদায় নেন। চার নম্বরে নেমে নাসির খেলেন অপরাজিত ১০৬ রানের চোখ-ধাঁধানো ইনিংস। তার ১০৬ বলের ইনিংসে ছিল ৯টি বাউন্ডারি আর ৫টি ওভার বাউন্ডারি। আলোচিত জম্বু-কাস্মিরের ভারতীয় বোলিং অলরাউন্ডার পারভেজ রাসুল ৫৭ বলে ৫৩ রান করে অপরাজিত থাকেন।

ম্যাচ সেরা হন নাসির হোসেন। ৩৭ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে জয় তুলে নেয় গাজী গ্রুপ। মোহামেডানের হয়ে দুটি উইকেট নেন তাইজুল। মিরাজ, শুভাষিস, রাব্বি, এনামুল জুনিয়র কোনো উইকেট পাননি।

Advertisements