এই শ্রীলঙ্কা আর আগের শ্রীলঙ্কা নেই। বড় তারকা নেই। দলে একগাদা তরুণ খেলোয়াড়। সাঙ্গা-জয়াবর্ধনে, ভাস-মুরালিদের রেখে যাওয়া শূন্যতা পূরণে এখনো খাবি খাচ্ছে ’৯৬-এর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু বাংলাদেশের কাছে এভাবে আত্মসমর্পণ করার পেছনে শ্রীলঙ্কার অনভিজ্ঞতাকে আর অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাতে চান না খোদ দিনেশ চান্ডিমাল।
কাল বাংলাদেশের কাছে ৯০ রানে হেরে যাওয়া শ্রীলঙ্কা ওয়ানডেতে টানা ছয়টি ম্যাচ হারল। গত প্রায় এক বছরে ১৮ ওয়ানডের ১৪টি হেরেছে তারা, জিতেছে চারটি। তবে ম্যাচ শেষে চান্ডিমাল বললেন, ‌‘দেখুন, প্রতিবার হারের পর আপনি বলতে পারেন না—আমাদের ক্রিকেটে পালাবদল চলছে। আমাদের যার যার জায়গা থেকে দায়িত্ব নিয়ে ফল এনে দিতে হবে। সব খেলোয়াড়কে দায়িত্ব নিতে হবে, যে সুযোগ তারা পাচ্ছে, তার পূর্ণ ব্যবহার যেন অন্তত হয়। সব খেলোয়াড় কঠোর পরিশ্রম করছে। আশা করি, আমরা শিগগিরই এর ফলও দেখতে পাব।’
দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে কদিন আগে এই দলটা ওয়ানডেতে ধবলধোলাই হয়েছে। তখনো এমন শোরগোল ওঠেনি। প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কায় এসে এভাবে ছড়ি ঘোরাবে, দেশটির অনেকে যেন মেনে নিতে পারছে না। তবে চান্ডিমাল বলছেন, বাংলাদেশ যে এখন ভালো দল, এই বাস্তবতা মেনে নিতে হবে সবাইকে, ‘আমি নিজে যখন শ্রীলঙ্কা দলের হয়ে খেলতে শুরু করলাম, তখনো ওদের খুব সহজে হারিয়েছি। কিন্তু এই বাংলাদেশ অন্য বাংলাদেশ। ওদের দলে সাত কি আটজন খেলোয়াড় আছে, যারা অনেক দিন ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছে। এরা সবাই দলের হয়ে খেলছে বলে অভিজ্ঞতাতেও ওরা অনেক এগিয়ে আছে।’

কালকের পরাজয়ের জন্য চান্ডিমাল মূলত দায়ী করেছেন দলের বাজে ফিল্ডিংকে, ‘ওদের ২৮০-র মধ্যে আটকে ফেলতে পারলেও আমাদের ব্যাটে কিছু করার সুযোগ ছিল। কিন্তু আমরা খুবই বাজে ফিল্ডিং করেছি। আমরা ফিল্ডিং অনুশীলন করছি অনেক, কিন্তু ম্যাচের মধ্যে চাপে পড়ে যাচ্ছি। দলে অনেক তরুণ খেলোয়াড়, ফলে ভুল হতে পারে। তবে আমাদের চেষ্টাটা আছে। আশা করি, পরের দুই ম্যাচে আমাদের ফিল্ডিং ভালো হবে।’
শ্রীলঙ্কা ব্যাটিং আসলেই ভালো করছিল। বাংলাদেশের চাপিয়ে দেওয়া এত বড় রানের বোঝা সামলাতে পারেনি। তবে কি প্রথমে ব্যাটিং করলেই ভালো করত শ্রীলঙ্কা? চান্ডিমাল মনে করেন, তাতে হিতে বিপরীত হতে পারত, ‘টসে জিতে ব্যাটিং করতে নামলে সেটা উল্টো আমাদের বিপদেও ফেলে দিতে পারত। টসে জিতলে পরে ব্যাটিং করব এটা আমাদের দলীয় সিদ্ধান্ত ছিল। গত দুই দিনে এখানে আমরা রাতে শিশির পড়তে দেখেছি। আমরা এর ফায়দা নিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আজ (গতকাল) সেভাবে শিশির পড়েনি, সবকিছু আমাদের পক্ষে যায়নি।’

Advertisements