আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৬ টি শতক হাঁকিয়েছেন তামিম ইকবাল। টেস্টে আটটি, ওয়ানডেতে ৭ টি এবং টি-২০ তে একটি সেঞ্চুরি রয়েছে এ  বাঁহাতি ওপেনারের। বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি শতকের মালিক তিনি।  তবে তামিম মনে করেন আরো থাকা উচিত ছিল। উইজডেন ইন্ডিয়াকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমনটাই বলেন এ ড্যাশিং ওপেনার।

তামিম বলেন, “আমি আরো ভালো অবস্থায় থাকতে পারতাম। অবশ্যই আমি বেশ কিছু সুযোগ হাতছাড়া করেছি। আপনি আমার ওয়ানডে রেকর্ড যদি দেখেন- ৩৪ টি অর্ধশতক কিন্তু শতক মাত্র ৭ টি। আমার আরো কমপক্ষে দশটি অর্ধশতককে শতকে পরিণত করা উচিত ছিল। এটা হতাশাজনক।”

সামনের সময়গুলোতে ভুলের পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চান না তামিম। শতক নিয়ে আক্ষেপ আর সামনের দিনগুলোর লক্ষ্য নিয়ে বলেন, “আমি কাউকে দোষ দিচ্ছি না। আমি নিজেকেই দোষ দিচ্ছি।   আমি যদি আরো শতক হাঁকাতে পারতাম তাহলে অন্য একটা কাতারে থাকতাম। আমার বয়স এখন ২৮। এটা একটা ভাল দিক। আমার হাতে আরো কিছু বছর আছে। আমি একই ভুলগুলো যদি বারবার না করি, তাহলে আগের চেয়ে বেশি খুশি হবো।”

২০০৭ সালে অভিষেক হয়েছিল তামিমের। তখনকার খ্যাপাটে তামিম এখন অচেনা। বদলেছেন নিজের ব্যাটিং। আগের চেয়ে অনেক দায়িত্ব নিয়ে ব্যাটিং করতে জানেন এখন। ব্যাটিং করেন পরিস্থিতির দাবি মিটিয়ে।

ব্যাটিংয়ে এ পরিবর্তন নিয়ে বলেন, “সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যে বিষয়টা হলো আমি যখন শুরু করেছিলাম তখন আমার কাছে কারো কোনো প্রত্যাশা ছিল না। আমি শুধু ব্যাটিংয়ের একটা উপায়ই জানতাম এবং সেটাই করতাম। আমার হাতে দুয়েকটা শট ছিল। আমি সেগুলো খেলতেই অভ্যস্ত ছিলাম। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আপনার উন্নতির প্রয়োজন হয়, বিকাশের প্রয়োজন হয় এবং প্রচুর শট খেলার প্রয়োজন হয়।”

“শুরুতে আমার ব্যাপারে কেউ জানতো না এবং যখন তারা আমার খেলার ধরণ ধরে ফেলতো তখন আমার অস্বস্তির জায়গাগুলোতে বল করা শুরু করতো। তাই আমি আমার সামর্থ্যে আরো শট যোগ করেছি। আমার দুর্বলতাগুলো নিয়ে আমাকে পরিশ্রম করতে হয়েছে। এদের মধ্যে কিছু ঠিক হয়েছে, কিছু হয়নি,” যোগ করেন তামিম।

তিনি আরো বলেন, “এখন মানুষ সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে আমার কাছ থেকে প্রত্যাশা করা শুরু করেছে। প্রত্যেক বলেই ব্যাট চালানো মজা দিতে পারে কিন্তু বড় স্কোর গড়তে হলে এবং ধারাবাহিক হতে হলে আপনাকে বদলাতেই হবে। মানুষ যখন আমার কাছ থেকে আরো বেশি কিছু চাওয়া শুরু করলো, আরো বেশি রান চাইতে লাগলো আমি তত স্মার্ট হতে লাগলাম।”

ওয়ানডেতে বাংলাদেশ দলের ব্যাপক উন্নতি হয়েছে বলে মনে করেন তামিম।  টেস্টে পারফরম্যান্সের গ্রাফ উপরে তুলতে এ মৌসুমের মতো অন্য সময়ও বেশি বেশি ম্যাচ চান তিনি। তামিম মনে করেন টেস্টে উন্নতির জন্য টেস্ট বেশি খেলার বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, “টেস্ট ক্রিকেটে আপনি উন্নতি করতে পারবেন যদি আপনি বেশি বেশি খেলেন। ওয়ানডেতে আমাদের ফলাফলে পরিবর্তন এসেছে। আমরা ঘরের বাইরেও এখন ভালো খেলা শুরু করেছি। কিন্তু আমাদের আরো ভালো করা উচিত। আর সেটা হবে আমরা যদি বেশি বেশি খেলি।  এটা আসলে হয়ে থাকে অভিজ্ঞতার কারণে। আমরা ঘরের মাটিতে একটা শক্তিশালী ওয়ানডে দল। আমাদের এখন ঘরের মাটিতে টেস্টে শক্ত দল হতে হবে। তারপরের ধাপ হলো দেশের বাইরে ভাল খেলা।”

Advertisements