মাঝে একটা বছর খুঁজে পাওয়া যায়নি চেনা সৌম্য সরকারকে। ২০১৪ সালে অভিষেকের পরে নিজেকে যে উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন, ২০১৬তে এসে যেন তা মুদ্রার অন্য পিঠ। ব্যাটে রান না আসায় বাদও পড়তে হয়েছে দল থেকে। কিন্তু হতাশ হয়ে থেমে যাননি সৌম্য। নিজেকে ঝালাই করেছেন এবং আবারো ফিরে এসেছেন। তবে এই সৌম্য হয়েছেন অনেকটাই দায়িত্বশীল ও শান্ত।

গেল নিউজিল্যান্ড সফর থেকেই আবারো যেন ধীরে ধীরে তার ব্যাট কথা বলতে শুরু করেছে। ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে ৮৬ রান। এরপরেই আবারো ভরসার নাম হয়ে গেলো সৌম্য। ভরসা করে যে ভুল হয়নি তার প্রমানও দিলেন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টে।  দুই টেস্টের প্রথম তিন ইনিংসে ৭১, ৫৩, ৬১।

তবু একটা প্রশ্ন থেকে রেহাই পাচ্ছেন না এই বাঁহাতি ওপেনার। কেন এই ইনিংসগুলো আরও বড় হচ্ছে না? চেষ্টার কম করছেন না। কিন্তু হচ্ছে না। তবে সামনেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ। আরেকটি সুযোগ পাচ্ছেন নিজেকে প্রমানের। সীমিত ওভারে বড় ইনিংস দিয়েই নিজের প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে চান সৌম্য।

মঙ্গলবার প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে অনুশীলন শেষে সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়ে গেলেন নিজের ইচ্ছার কথা। বললেন,  ‘আমি সব সময়ই চেষ্টা করে যাচ্ছি। কেউ তো ইচ্ছে করে ওভাবে আউট হয় না। আমি চাইব পেছনের ভুলগুলো যেন আর না হয়। চেষ্টা করব ওয়ানডেতেও টেস্টের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে রান করতে।’

বলেন, ‘টেস্টে ইনিংস বড় করতে পারিনি। ওয়ানডেতে সেরকম সুযোগ পেলে বড় করার চেষ্টা করব। চেষ্টা করব নিজের কাজ শতভাগ দেওয়ার। দলে আরও বেশি অবদান রাখার।’

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচটিও বেশ গুরুত্বপূর্ণ, তাও জানালেন সৌম্য। টানা পাঁচ টেস্ট পরে আবারো সাদা বলে নিজেদের মানিয়ে নেওয়ার জন্যই এখন প্রস্তুতি নিচ্ছেন দলের সবাই।

ওয়ানডেতে সৌম্যর রেকর্ড বরাবরই চোখে পড়ার মতো। একমাত্র আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরিটিও করেছেন এই সংস্করণেই। তাই ২৫ মার্চ থেকে শুরু হওয়া এই ফরম্যাটে প্রত্যাশাই বেশি সৌম্যর কাছে। সৌম্যও চান আবারো নিজেকে প্রমান করতে।

সূত্র: দ্য ডেইলি স্টার

Advertisements