দ্য আইল্যান্ড মৃত্যুফলক বানিয়েছে.

কলম্বোয় নিজেদের মাটিতে, চেনা কন্ডিশনে টাইগারদের ১৯১ রান লক্ষ্য ছুড়ে দিয়ে শ্রীলঙ্কা তো জয়ের স্বপ্ন দেখতেই পারে। কেননা ভারত-পাকিস্তানকে এমন ছোট্ট লক্ষ্য দেয়া হয়েছিল, সেটা উৎরে যেতে পারেনি। তবে তামিম ইকবালের ৮২ রানের মহামূল্যবান ইনিংস ও সাব্বির রহমানের (৪১) সময়োচিত ব্যাটিংয়ে জয়ের ভিত তৈরি হয় বাংলাদেশের। শেষ দিকে মুশফিকের বুক চিতিয়ে লড়া ২২ রানে ভর করে জয় নিশ্চিত হয় টাইগারদের।

তাইতো যা পারেনি ভারত-পাকিস্তান; তা করে দেখিয়েছে টিম বাংলাদেশ। নিজেদের শততম টেস্টে ৪ উইকেটের রোমাঞ্চকর এক জয় তুলে নিয়েছে মুশফিকুর রহীমের দল। ম্যাচ শেষে লঙ্কান অধিনায়ক রঙ্গনা হেরাথ বলেছেন, বাংলাদেশের কাছে এই হার তাঁর ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বাজে হারগুলোর মধ্যে একটি। শ্রীলঙ্কান ইংরেজি পত্রিকা দ্য আইল্যান্ড তো আজ তাদের ওয়েবসাইটে এই হারকে ‘মৃত্যুসম’ বলে নিজ দেশের ক্রিকেটের এক ‘এপিটাফ’ই প্রকাশ করেছে।

দ্য আইল্যান্ড মৃত্যুফলক বানিয়ে লিখেছে: ‘আন্তরিকতার সঙ্গে স্মরণ করছি শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটকে। মৃত্যু: ১৯ মার্চ, ২০১৭, স্থান: দ্য ওভাল ( পি সারা ওভাল)। এই মৃত্যুতে তার সকল শুভানুধ্যায়ী গভীরভাবে শোকাহত। আর.আই.পি (রেস্ট ইন পিস—আত্মা স্বর্গলাভ করুক)। পুনশ্চ: মৃতদেহ দাহ করা হবে এবং ছাই নিয়ে যাওয়া হবে বাংলাদেশ।’

এপিটাফটি ১৮৮২ সালে দ্য স্পোর্টিং টাইমসে লেখা রেজিন্যাল্ড ব্রুকসের সেই বিখ্যাত এপিটাফটির হুবহু মিলে গেছে। অস্ট্রেলিয়ার কাছে ইংল্যান্ড ৭ রানে টেস্ট হেরে যাওয়ার পর ব্রুকস এটিকে প্রতীকী মৃত্যু হিসেবে দেখেছিলেন। এর পরপরই ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার এই আদি দ্বৈরথ ‘অ্যাশেজ’ সিরিজ নামে বিখ্যাত হয়ে যায়।

এটি যতটা না ক্রিকেটের মৃত্যু, তার চেয়ে বেশি ক্রিকেটীয় অহংবোধের মৃত্যুর প্রতীক। বাংলাদেশের কাছে নিজেদের মাঠে হেরে যাওয়াকে মেনে নিতে না পারাই শ্রীলঙ্কার অন্যতম পত্রিকাটি সেভাবেই দেখছে। পি সারা ওভালে শততম টেস্টে বাংলাদেশের এই ঐতিহাসিক জয় লঙ্কান ক্রিকেটের ‘মৃত্যু’ হয়তো নয়; তবে এটি অবশ্যই বাংলাদেশ ক্রিকেটের এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছে বৈকি।

Advertisements