বিশ্বের পঞ্চম ধনী ক্রিকেট বোর্ড হিসেবে উঠে এসেছে সাকিব-তামিম-মুশফিক-মাশরাফিদের বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া,  নিউজিল্যান্ড থেকেও এগিয়ে বিসিবি।

এক হাজার কোটি টাকারও বেশি আয়ের ভাগ কমছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই)। তারপরও বিশ্বের সর্বোচ্চ আয় করা এই বোর্ডটি ধনী বোর্ডের তালিকায় এক নম্বরে। আইপিএল এ উপার্জনের মূল কাণ্ডারি।

নতুন অর্থনৈতিক মডেলের চিত্রে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সম্ভাব্য আয়ের ভাগ ৭৫-৮০ মিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ১১০-১১৫ মিলিয়ন ডলার হচ্ছে। বিসিবির সম্ভাব্য আয় বাড়ছে ৩ কোটি ৫০ লাখ ডলার। ২০২৩ সাল পর্যন্ত আইসিসি থেকে এই পরিমাণ টাকা পাওয়ার সম্ভাবনা আছে বিসিবির।

 

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের বর্তমান সম্পত্তির পরিমাণ বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪১০ কোটি টাকা। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার মাত্র ১৭৫ কোটি টাকার মতো। বছরে আয়ের দিক দিয়ে টিভি রাইটস, বিগব্যাশ, অন্যান্য স্পন্সর, আইসিসি থেকে প্রাপ্ত অর্থ বাবদ বছরে প্রায় ৭৫ কোটি টাকার মতো আয় করেছে অস্ট্রেলিয়া। বিসিবির আয় প্রায় ৭০ কোটি টাকার মতো। তবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ব্যয় তুলনামূলক বেশি হওয়ায় বছরে তাদের নিট আয় ২৫ কোটি টাকার মতো। অন্যদিকে বিসিবির নিট আয় ৪৫ কোটি টাকার বেশি।

ধনী ক্রিকেট বোর্ডের তালিকা:

১। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড-২৯৫ মিলিয়ন ইউএস ডলার

২। ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকা-৭৯ মিলিয়ন ইউএস ডলার

৩। ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড-৫৯ মিলিয়ন ইউএস ডলার

৪। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড-৫৫ মিলিয়ন ইউএস ডলার

৫। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড-৫১ মিলিয়ন ইউএস ডলার

৬। জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড-৩৮ মিলিয়ন ইউএস ডলার

৭। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া-২৪ মিলিয়ন ইউএস ডলার

৮। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড-২০ মিলিয়ন ইউএস ডলার

৯। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড-১৫ মিলিয়ন ইউএস ডলার

১০। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড-৯ মিলিয়ন ইউএস ডলার

তথ্যসূত্রঃ বাংলানিউজ২

Advertisements