আইপিএলে দল পেয়ে রোমাঞ্চিত রশিদ খান।গত সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশ সফরে নিজেকে দারুণভাবে চিনিয়েছিলেন আফগানিস্তানের রশিদ খান। তিন ওয়ানডেতে ৭ উইকেট নেওয়া রশিদ বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের ভালোই ভুগিয়েছিলেন। দেশের হয়ে ধারাবাহিকভাবে ভালো করে যাওয়ার ফল পেলেন দারুণভাবেই। তাঁর চেয়েও অনেক নামকরা তারকাদের পেছনে ফেলে ৪ কোটি রুপিতে আইপিএলে নাম লেখালেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদে। চা-র কোটি রুপি!
ওয়ানডে সিরিজ খেলতে জিম্বাবুয়েতে থাকা রশিদ কি ভেবেছিলেন এমন কিছু! আজ থেকে আট বছর আগে ঠিক এমনই অবস্থা হয়েছিল বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার। অপ্রত্যাশিতভাবেই রশিদের মতোই সেদিন ৬ লাখ ডলারে মাশরাফিকে কিনেছিল কেকেআর। বাইরের পৃথিবীর চমকে গিয়েছিল, মাশরাফিকে এত টাকায় কেনায়। মাশরাফিরও শুরুটা হয়েছিল খুবই কম ভিত্তিমূল্য থেকে। তার পর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব আর কেকেআরের টানাটানিতে দর চলে যায় আকাশে। যে লড়াই প্রীতি জিনতা বনাম জুহি চাওলার লড়াই হিসেবেও খ্যাতি পেয়েছিল। দুজনই যে নিজ নিজ দলের হয়ে সেদিন নিলামে ছিলেন।
এবার রশিদকে নিয়েও দুই দলের টানাটানিতে দাম চলে গেল ৪ কোটি রুপিতে। অথচ আইপিএল নিলামে নাম থাকলেও দল পাবেন—এমন ভাবনাও নাকি মাথায় ছিল না রশিদের। বলেছেন, ‘আমি খুব অবাক হয়েছি, খুশি হয়েছি, রোমাঞ্চিতও হয়েছি। খুব তাড়াতাড়িই ঘটে গেল সবকিছু। ব্যাপারটা এখনো বিশ্বাস করে উঠতে পারছি না।’

ক্রিকেট খেলতে তিনি এখন পৃথিবীর অন্য প্রান্তে। নিলাম শুরু হওয়ার সময়ও ছিলেন গভীর ঘুমে। রশিদ বলেছেন, ‘আমার বাবা-মা তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠে নিলাম দেখতে বসেছিলেন। আমি তখন ঘুমিয়ে ছিলাম। তাঁরা তখন আমাকে ঘুম থেকে ডেকে তোলেন আর টিভি দেখতে বলেন। কারণ এরপর আমার নিলামই শুরু হচ্ছিল।’
আইপিএলের দরজা খুলে গেলেও রশিদ এখন অপেক্ষায় আরও বড় কিছুর। এই মুহূর্তে আফগানিস্তানের টেস্ট মর্যাদাই তাঁর কাছে সবচেয়ে বেশি প্রার্থিত, ‘আমরা টেস্ট খেলতে চাই। এটাই আমাদের মূল লক্ষ্য। আমরা সবাই খুব পরিশ্রম করছি সুযোগটা পাওয়ার জন্য। আমরা যদি টেস্ট খেলার সুযোগ পাই, তাহলে ভাবতেও পারবেন না আমরা কতটা খুশি হব।’ সূত্র: ক্রিকইনফো।

Advertisements