পাকিস্তানের বিপক্ষে কোনো দ্বিপাক্ষিক সিরিজ তো খেলবেই না ভারত। কখনও আইসিসির টুর্নামেন্টে মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনাও মুছে দেয়ার পরিকল্পনা নিয়ে রেখেছে তারা। কিন্তু ভারত না চাইলেও অনূর্ধ্ব-২৩ ক্রিকেটে বাংলাদেশেই মুখোমুখি হচ্ছে ভারত ও পাকিস্তান। কক্সবাজারে ১৫ মার্চ শুরু হতে যাওয়া অনূর্ধ্ব-২৩ ইমার্জিং ট্রুফিতে মুখোমুখি হবে ক্রিকেটে সবচেয়ে বড় দুই প্রতিপক্ষ।

এই ম্যাচ দিয়েই ক্রিকেট মাঠে আবার ফিরছে ভারত–পাকিস্তান লড়াই। চলতি বছরের জুনে ইংল্যান্ডে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আগেই মুখোমুখি হচ্ছে ভারত–পাক। বাংলাদেশে ১৫–২৬ মার্চ হবে এমার্জিং কাপ। তবে সেই লড়াইয়ে বিরাট–সরফরাজদের লড়াই দেখা যাবে না। কারণ টুর্নামেন্টটা অনূর্ধ্ব ২৩–দের জন্য। যোগ দেবে ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, আফগানিস্তান, ইউএই, হংকং ও নেপাল।

ক্রিকেট মাঠে আবার ফিরছে ভারত–পাকিস্তান লড়াই।

জানা গেছে, আইসিসির পূর্ণসদস্য দেশগুলো চারজন সিনিয়রকে খেলানোর সুযোগ পাবে। অ্যাসোসিয়েট দেশ হওয়ায় আফগানিস্তান, হংকং, ইউএই, নেপাল অবশ্য সিনিয়র দলই খেলাবে। বাংলাদেশে অনূর্ধ্ব–২৩ টুর্নামেন্ট যখন চলবে, ভারতের সিনিয়র দল তখন ব্যস্ত থাকবে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজ নিয়ে। তাই কোন চারজন সিনিয়র খেলবেন তা নিশ্চিত নয়।

টুর্নামেন্ট এর আয়োজক এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল। বিসিসিআই এখানে খেলার ব্যাপারে সম্মতি দিয়েছে। যেহেতু দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নয়, তাই ভারত–পাক লড়াইয়ে আপত্তি নেই ভারতীয় বোর্ডের। ২০১৫ বিশ্বকাপে শেষবার মুখোমুখি হয়েছিল ভারত–পাক। বিরাটের শতরানে সেই ম্যাচটা জিতেছিল ধোনির ভারত। ‌‌

১৫ মার্চ শুরু হয়ে টুর্নামেন্ট চলবে ২৬ মার্চ পর্যন্ত। তবে এখন পর্যন্ত সূচি তৈরি হয়নি। তাই নির্ধারিত হয়নি কবে তারা মুখোমুখি হবে। সূচি নির্ধারিত হলেই হয়তো ভারত-পাকিস্তান মুখোমুখি হওয়া নিয়ে উত্তেজনা শুরু হবে।

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কর্মকর্তা এমভি শ্রীধর ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ভারত-পাকিস্তান কোনো দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নয়, আট দলের একটি টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হবে কক্সবাজারে। এটা এসিসির (এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল) টুর্নামেন্ট। আমরা যাব। ভারত দল পাঠাবে।’

ওই টুর্নামেন্টের সময় ভারতে চলবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ক্রিকেট সিরিজ। এ কারণে টুর্নামেন্টে ভারত জাতীয় দলের কোনো ক্রিকেটার পাঠাতে পারবে কিনা এ নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।

Advertisements