জাতীয় ক্রিকেট লিগের প্রথম দিনটি ব্যাটসম্যানদের জন্য খুব একটা ভালো না গেলেও দ্বিতীয় দিনে রান পেয়েছেন তারা। প্রথম দিনে বোলারদের দাপটে অল্প রানেই ইনিংস গুটিয়ে নিতে হয় তিন দলকে। কেবল রংপুর বিভাগ ছিল ব্যতিক্রম। লিটন দাস, আরিফুল হক, সোহরাওয়ার্দী শুভরা রংপুরকে বড় সংগ্রহের পথে রেখেছিলেন। শেষপর্যন্ত প্রথম ইনিংসে ৪৫০ রানের বড় সংগ্রহও পেয়েছে তারা। আর আজ দ্বিতীয় দিনে অবশ্য ব্যাটসম্যানদের দাপট দেখা গেছে।

এ দিন তিনটি সেঞ্চুরি হয়েছে। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে চট্টগ্রাম বিভাগের বিপক্ষে ১২১ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেছেন রংপুর বিভাগের অলরাউন্ডার সোহরাওয়ার্দী শুভ। বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দল বরিশাল বিভাগের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেছেন খুলনা বিভাগের দুই ব্যাটসম্যান এনামুল হক বিজয় ও তুষার ইমরান। বিজয় ১৩৬ ও তুষার ১০৮ করেছেন। বল হাতে স্পিন ঘূর্ণি দেখিয়েছেন বরিশাল বিভাগের মনির হোসেন। বাঁহাতি এই স্পিনার নিয়েছেন ছয় উইকেট।

বিজয় ও তুষারের ব্যাটে প্রথম ইনিংসে ৩৭১ রান তুলেছে প্রথম স্তরের পয়েন্ট টেবিলের দুই নম্বরে থাকা খুলনা বিভাগ। যদিও তাদের ইনিংসটি আরও বড় হতে পারত। চার উইকেটেই ৩২৮ রান তুলেছিল খুলনা। বাকি ৪৩ রান তুলতেই ছয় ব্যাটসম্যান হারিয়ে বসে তারা। বরিশালের বাঁহাতি স্পিনার মনির হোসেন একাই তুলে নেন ছয় উইকেট। খুলনার চেয়ে ১৯০ রানে পিছিয়ে আছে প্রথম ইনিংসে ১৭১ রানে অলআউট হওয়া বরিশাল। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে কোনো উইকেট না হারিয়ে ১০ রান তুলেছে শাহরিয়ার নাফিস, আবু সায়েমরা।

চট্টগ্রামের বিপক্ষে দারুণ ব্যাটিং করেছে রংপুর বিভাগ। তাদের প্রথম ইনিংস থেমেছে ৪৫০ রানে। সায়মন আহমেদ ও লিটন দাস ভালো শুরু করার পর বাকি ব্যাটসম্যানরাও রানের দেখা পেয়েছেন। লিটন ৭৩ ও আরিফুল হক ৫২ রান করে আগেরদিন আউট হয়েছিলেন। দ্বিতীয় দিনে সোহরাওয়ার্দী শুভ ও আলাউদ্দিন বাবু রংপুরকে পথ দেখিয়েছেন। আলাউদ্দিন ৬৪ রান করে আউট হলেও সোহরাওয়ার্দী খেলেন ১২১ রানের ইনিংস। জবাবে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে দুই উইকেটে ৮২ রান তুলেছে চট্টগ্রাম বিভাগ।

বগুড়ার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে রাজশাহী বিভাগ-সিলেট বিভাগের কেউই বড় স্কোর গড়তে পারেনি। সিলেটের পেসার আবু জায়েদ রাহির বোলিং তোপের মুখে ২০৪ রানেই প্রথম ইনিংস শেষ করে রাজশাহী। জবাবে ফরহাদ রেজা ও মামুন হোসেনের দারুণ বোলিংয়ে সিলেটের প্রথম ইনিংস থামে ২১৯ রানে। দ্বিতীয় দিনশেষে ৭৭ রানে এগিয়ে থাকা রাজশাহী দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে তিন উইকেটে ৯৩ রান তুলেছে।

সবচেয়ে ছোট ছোট ইনিংস হয়েছে ফতুল্লার ঢাকা বিভাগ ও ঢাকা মেট্রোর মধ্যকার ম্যাচে। প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ১৬৬ রানেই গুটিয়ে যায় ঢাকা মেট্রো। জবাবে ঢাকা বিভাগও ভালো ব্যাটিং করতে পারেনি। মোহাম্মদ আশরাফুল, শহিদুল ইসলামদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ১৮৭ রানে শেষ হয় ঢাকা বিভাগের প্রথম ইনিংস। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ২৭ রানেই চার উইকেট হারিয়ে ফেলেছে ৬ রানে এগিয়ে থাকা ঢাকা মেট্রো।

Advertisements