ব্যস্ত সূচির কারণে বাংলাদেশের বিপক্ষে দলে নাও থাকতে পারেন নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টানা সিরিজ খেলে ক্লান্ত উইলিয়ামসন। তাই তাকে বিশ্রাম দেওয়া হতে পারে এমন সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন খোদ নিউজিল্যান্ডের কোচ মাইক হেসন।

তবে তিনি না থাকলে কে অধিনায়ক হচ্ছেন-সে বিষয়ে কিছু বলেননি হেসন।

এদিকে সামনে নিউজিল্যান্ডের টানা সূচি। আগামী বছরের মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশ, অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে মোট ১৪টি ওয়ানডে, চারটি টি-টোয়েন্টি ও সাতটি টেস্ট ম্যাচ খেলবে নিউজিল্যান্ড।

তাই আসছে ২৬ ডিসেম্বর ‘বক্সি ডে’ দিয়ে শুরু হওয়া বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে উইলিয়ামসন না থাকার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

কোচ হেসন বলেন, ‘আমরা গত কয়েক বছর থেকেই এটা করে আসছি। যারা তিন ফরম্যাটেই খেলেন তাদের কিছুদিনের বিশ্রাম দিই এবং নতুন ক্রিকেটারদের সুযোগ দিই। উইলিয়ামসন অনেকদিন থেকেই তিন ফরম্যাটে দায়িত্ব পালন করছে, তাই তার বিশ্রাম প্রয়োজন।’

এদিকে উইলিয়ামসন দলে না থাকলে কে হতে যাচ্ছেন অধিনায়ক- সে বিষয়ে নির্দিষ্ট করে কিছুই জানাননি হেসন। তিনি বলেন, ‘এটা ম্যাচ থেকে ম্যাচ পরিবর্তন হতে পারে। আগে আমাদের দেখতে হবে কোন দায়িত্বশীল ক্রিকেটার তিন ফরম্যাটেই আমাদের সঙ্গে থাকছেন। যার উপরে আমরা ভরসা করতে পারবো তাকেই দায়িত্ব দেবো।’

দলে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে ইনজুরি থেকে ফেরা অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান রস টেইলরের। তবে তাকে হয়তো ১২ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া টেস্ট দলে নেওয়া হবে। এছাড়া সিরিজে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে বাঁহাতি ফাস্ট বোলার মিশেল ম্যাকক্লেনাঘান ও কোরি অ্যান্ডারসনের। দু’জনই ইনজুরি কাটিয়ে সুস্থ হয়েছেন।

জানিয়ে রাখা ভালো, বিগ ব্যাশের দল সিডনি থান্ডার ও সিডনি সিক্সার্সের বিপক্ষে দু’টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ দল। ম্যাচ দু’টি অনুষ্ঠিত হবে ১৪ ও ১৬ ডিসেম্বর। এরপর  ২৬ ডিসেম্বর ওয়ানডে ম্যাচ দিয়ে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ডের মূল সিরিজ শুরু হবে।

২৯ ডিসেম্বর দ্বিতীয় ওয়ানডে, তৃতীয় ওয়ানডে ৩১ ডিসেম্বর। এ সিরিজ শেষে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি। ৩ জানুয়ারি প্রথম টি-টোয়েন্টি, ৬ জানুয়ারি দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি। তৃতীয় টি-টোয়েন্টি হবে ৮ জানুয়ারি।  ১২ জানুয়ারি শুরু সিরিজের প্রথম টেস্ট। ২০ জানুয়ারি দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট।

সূত্র: স্টাফ.কো.এনজেড

Advertisements