ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের সর্বশেষ আসরে বেশ কয়েকজন বোলারের বিরুদ্ধে অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের অভিযোগ উঠেছিল। বোলিং অ্যাকশনে ত্রুটি আছে এমন ১০ জন বোলারের নামও লিগ শেষে প্রকাশ করেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এর মধ্যে পাঁচ বোলারের বোলিং অ্যাকশন অবৈধ ঘোষণা করে বিসিবির বোলিং অ্যাকশন রিভিউ কমিটি। সেই তালিকার চার স্পিনার সোমবার বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা দিয়েছেন।

সোমবার সকালে বিসিবি একাডেমি মাঠে পরীক্ষা দেওয়া চার স্পিনার হচ্ছেন ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স, শরীফউল্লাহ, অমিতাভ কুমার নয়ন ও মোস্তাফিজুর রহমান। বিসিবির কম্পিউটার অ্যানালিস্ট নাসির আহমেদ নাসু, বোলিং অ্যাকশন রিভিউ কমিটির সদস্য গোলাম ফারুক সুরু, ওমর খালেদ রুমির উপস্থিতিতে পরীক্ষা দেন ডিকেন্স-শরিফুল্লাহরা। তাদের বোলিংয়ের ভিডিও চারটি ক্যামেরা দিয়ে ধারণ করে রাখা হয়েছে।

ফয়সাল হোসেন ডিকেন্সের বয়স চলছে ৩৮। হয়তো কিছুদিনের মধ্যেই ক্রিকেটকে বিদায় বলে দেবেন বাংলাদেশের হয়ে একটি টেস্ট ও ছয়টি ওয়ানডে খেলা বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। এমন সময়ে এসে কি না তাকে দিতে হচ্ছে বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা।

পরীক্ষা দেওয়ার পর ডিকেন্স জানান, ‘স্পোর্টসম্যান হিসেবে শেখার কোনো শেষ নেই। বয়সটা শেষ প্রান্তে হোক আর যেটাই হোক। যেহেতু আমার বোলিং একটা সমস্যা খুঁজে পেয়েছে আম্পায়াররা, অবশ্যই আমার এটা শেষ করতে হবে। আমি কাজ করছি, আজ পরীক্ষা দিলাম। আমার বোলিং অ্যাকশনটা অবৈধ নিয়ে আমি খেলা ছাড়তে চাই না।’

আরেক বাঁহাতি স্পিনার অমিতাভ কুমার নয়ন বলেন, ‘আমাদেরকে ওয়াহিদুল গনি স্যারের সঙ্গে কাজ করতে দিয়েছে। তার অধীনে কাজ করছি। এর আগে তো আমরা এমন করে কাজ করিনি। এখন বিসিবি উদ্যোগটা নিয়েছে। যা আমাদের জন্য বেশ ভালো। আমাদের বোলিংয়ে যে সমস্যা ছিল, সেগুলো তো আমরা বুঝতামই না।’

প্রথমবার বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা দিয়ে নিষিদ্ধ হওয়া এই চার বোলার গত তিন-চার মাস ধরে ওয়াহিদুল হক গনির তত্ত্বাবধানে বোলিং অ্যাকশন নিয়ে কাজ করেছেন।

Advertisements